বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের কক্ষে হামলা, ভাঙচুর ও সহকারী রেজিস্ট্রারকে মারধরের অভিযোগে ১৬ শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার করা হয়েছে। গত রোববার রাতে ঢাকায় বিশ্ববিদ্যালয়ের লিয়াজোঁ কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সিন্ডিকেট সভায় ওই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।
১৬ জনের মধ্যে অর্থনীতি বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী সাইদুল ইসলাম, ব্যবস্থাপনা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী আল মামুন ও ব্যবস্থাপনা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী এনামুল হককে স্থায়ী বহিষ্কার করা হয়েছে। এ ছাড়া চারজনকে দুই বছর এবং বাকি নয়জনকে এক বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়।
বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সূত্রে জানা গেছে, গত ৫ জুন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের অস্থায়ী ক্যাম্পাসে ১৩ দফা দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলন চলছিল। এ সময় তাঁরা দাবি আদায়ে পরীক্ষা, ক্লাস বর্জনসহ উপাচার্যকে অবরুদ্ধ করে রাখেন। এসব আন্দোলনে ছাত্রদল-ছাত্রশিবিরের ইন্ধন রয়েছে বলে অভিযোগ ওঠে। পরে এসব অভিযোগ উত্থাপনের জন্য শিক্ষার্থীরা বিশ্ববিদ্যালয়ের সহকারী রেজিস্ট্রার বাহাউদ্দিন গোলাপকে দায়ী করেন। এ পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষার্থীরা রেজিস্ট্রারের কক্ষে হামলা, ভাঙচুর ও সহকারী রেজিস্ট্রারসহ কয়েকজনকে মারধর করেন।
ওই ঘটনায় ৩০ জুন বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ছয় শিক্ষার্থীকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করে। একই সঙ্গে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটি ৩০ সেপ্টেম্বর ১৬ শিক্ষার্থীকে অভিযুক্ত করে তদন্ত প্রতিবেদন দেয়। এরপর সিন্ডিকেটের দুটি সভা হলেও ওই ব্যাপারে সিদ্ধান্ত হয়নি। গত রোববারের সভায় অভিযুক্ত শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে ওই সিদ্ধান্ত নেয় বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।
বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হারুনর রশীদ খান প্রথম আলোকে জানান, বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রারের কক্ষে হামলা, ভাঙচুর ও মারধরের ঘটনায় গঠিত তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন অনুযায়ী ওই ১৬ শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তদন্ত কমিটি ভিডিওচিত্র দেখে অভিযুক্ত শিক্ষার্থীদের শনাক্ত করেছেন। এ ছাড়া অভিযুক্ত শিক্ষার্থীরাও হামলার কথা স্বীকার করেছেন।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন