রিয়াদ হত্যার রহস্য উদ্‌ঘাটন ও এক আসামিকে গ্রেপ্তারের বিষয়ে জানাতে আজ রোববার সকালে সিআইডির সদর দপ্তরে সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার মুক্তা ধর বলেন, রিয়াদ বেকার ছিলেন। বাসটির আগের সুপারভাইজার শিপন ছুটিতে যাবেন বলে তাঁর জায়গায় রিয়াদকে নেওয়া হয়। ঘটনার দিন বিকেলেই রিয়াদ ইকোনো সার্ভিস বাসে সুপারভাইজার হিসেবে কাজে যোগ দেন। এ জন্য তিনি ঢাকা থেকে লক্ষ্মীপুরে যান।

সিআইডির বিশেষ পুলিশ সুপার মুক্তা ধর বলেন, লক্ষ্মীপুরে যাওয়ার পর বাসের সুপারভাইজার হিসেবে কাজের জন্য রিয়াদ দৈনিক ৪০০ টাকা মজুরি চান। তখন বাসের চালক নাহিদ ও তাঁর সহকারী ইউসুফ বলেন, প্রথম দিন কোনো মজুরি দেওয়া হয় না। পরের দিন থেকে মজুরি দেওয়া হবে। এ নিয়ে কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে রিয়াদের মাথায় লোহা দিয়ে আঘাত করেন ইউসুফ। এতে তিনি বাসের ভেতরেই মারা যান।

অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন