পেট্রলবোমায় দগ্ধ হওয়ার আট দিন পর মারা গেলেন ট্রাকচালক জাহিদ আহম্মেদ। আজ শুক্রবার বেলা পৌনে ১১টার দিকে তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ 
হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে মারা যান। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল সূত্রে এ কথা জানা যায়।

হাসপাতালে নিহতের স্ত্রী জাকিয়া বেগম জানান, ১২ ফেব্রুয়ারি রাতে নরসিংদী সদর উপজেলার টঙ্গী-পাঁচদোনা বাইপাস সড়কের ভাটপাড়া এলাকায় কয়েকজন দুর্বৃত্ত ট্রাক লক্ষ্য করে পেট্রলবোমা ছোড়ে। এ সময় ট্রাকের চালক জাহিদ আহম্মেদ, তাঁর সহকারী সেলিম মিয়া ও জুয়েল মিয়া দগ্ধ হন। ওই দিন সন্ধ্যায় জাহিদ মিয়াকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। সেখানে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ তিনি মারা যান। তাঁর শরীরের ৪০ শতাংশ পুড়েছিল বলে হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে। হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের আবাসিক সার্জন পার্থ শংকর পাল জানান, জাহিদ আহম্মেদের লাশ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটের লাশঘরে রাখা হয়েছে।

জাহিদ আহম্মেদের একটি সন্তান রয়েছে। তার নাম জিদান আহম্মেদ। সে অষ্টম শ্রেণিতে পড়ে।

ওই দিন ট্রাকচালক জাহিদ আহম্মেদ প্রাণ কোম্পানির ঘোড়াশাল ফ্যাক্টরি থেকে পণ্য নিয়ে নরসিংদীর পাঁচদোনায় যাচ্ছিলেন। সেখানে দুর্বৃত্তদের ছোড়া পেট্রলবোমায় তাঁর সহকারী সেলিম মিয়া ও জুয়েল মিয়াও দগ্ধ হন। তাঁরা চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন