ঢাকার দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের জিনজিরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক নূর হোসেন ও তাঁর বড় ভাই একই ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সহসভাপতি কামাল হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

গতকাল শনিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে দক্ষিণ কেরানীগঞ্জের কদমতলী চৌরাস্তা থেকে তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়।
গ্রেপ্তারের সময় তাঁদের কাছ থেকে চারটি পেট্রলবোমা ও পাঁচটি ককটেল উদ্ধার করা হয়েছে বলে র‍্যাব দাবি করেছে। তবে ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে ‘একটি চক্র’ তাঁদের ফাঁসিয়ে দিয়েছে।
র‌্যাব-১০-এর অপারেশন কর্মকর্তা সহকারী পুলিশ সুপার খায়রুল আলম বলেন, আজ রোববার তাঁদের দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে। তবে তিনি তাঁদের রাজনৈতিক পরিচয় জানেন না বলে জানান।
ঢাকা জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মনির হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, নূর হোসেন জিনজিরা ইউনিয়ন ছাত্রলীগের যুগ্ম আহ্বায়ক। নূর হোসেনের বড় ভাই কামাল হোসেন। তিনি জিনজিরা এলাকায় অটোরিকশার যন্ত্রাংশের ব্যবসা করেন।
মনির হোসেন দাবি করেন, ‘একটি চক্র আমাদের নেতাকে ফাঁসিয়ে দিয়েছে। তিনি এই ঘটনায় জড়িত নন।’
কামাল হোসেনের অটোরিকশার যন্ত্রাংশের দোকানের আশপাশের ​লোকজন জানান, তিনি জিনজিরা ইউনিয়নের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের বিএনপির সহসভাপতি। দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ বিএনপির আহ্বায়ক নাজিমুদ্দিন মাস্টারও কামাল হোসেনের রাজনৈতিক পরিচয় নিশ্চিত করেছেন।
দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জামাল উদ্দিন মীর প্রথম আলোকে বলেন, তাঁদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। আদালতে নেওয়ার পর আদালত তাঁদের কারাগারে পাঠিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন