বরগুনার আমতলী উপজেলার গুলিশাখালী ইউনিয়নে পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ এক ব্যক্তি নিহত হয়েছেন। আরও ছয় ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। গতকাল শুক্রবার দিবাগত রাত সোয়া দুইটার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

নিহত ব্যক্তির নাম মোজাম্মেল হোসেন। তাঁর বাড়ি পটুয়াখালীর বড় বিঘাই ইউনিয়নের তিতকাটা গ্রামে। আটক ব্যক্তিরা হলেন জহিরুল ইসলাম, আনছার উদ্দিন, নাসির উদ্দিন, মো. মাসুম, আবু হানিফ ও বাচ্চু মিয়া। বরগুনার আমতলী উপজেলার বিভিন্ন গ্রামে তাঁদের বাড়ি।

পুলিশের দাবি, মোজাম্মেল আন্তজেলা ডাকাত দলের প্রধান। আটক ব্যক্তিরা ডাকাত দলের সদস্য। ঘটনাস্থল থেকে পাঁচটি ককটেল, সাতটি গুলি ও বেশ কিছু দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে। ‘বন্দুকযুদ্ধে’ পুলিশের দুই সহকারী উপপরিদর্শকসহ (এএসআই) পাঁচ সদস্য আহত হয়েছেন। তাঁদের আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) সুকুমার রায়ের ভাষ্য, গতকাল রাতে উপজেলার গুলিশাখালী গ্রামের বাসিন্দা আমজাদ প্যাদার বাড়ির পরিত্যক্ত একটি ঘরে একদল ডাকাত ডাকাতির প্রস্তুতি নিচ্ছে বলে পুলিশ গোপন সংবাদ পায়। এরপর আমতলী থানা পুলিশের একটি দল সেখানে গেলে ডাকাতেরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে গুলি চালায়। পুলিশও পাল্টা গুলি চালায়। গোলাগুলির এক পর্যায়ে মোজাম্মেল গুলিবিদ্ধ হয়ে ঘটনাস্থলে নিহত হন।

ওসির দাবি, মোজাম্মেলের বিরুদ্ধে হত্যা, ডাকাতি, নারী নির্যাতনসহ বিভিন্ন থানায় কমপক্ষে ১২টি মামলা রয়েছে।

বিজ্ঞাপন
অপরাধ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন