default-image

নরসিংদী শহরের কামারগাঁও থেকে শাওন মিয়া (১৫) নামের এক কিশোরের গলাকাটা লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কামারগাঁও এলাকার একটি কবরস্থানের পেছন দিক থেকে লাশটি উদ্ধার করা হয়।

অসুস্থ বাবার ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা নিয়ে উপার্জনের জন্য বের হওয়ার পরের দিন ওই স্কুলছাত্রের লাশ পাওয়া গেল। তার ব্যাটারিচালিত অটোরিকশাটি পাওয়া যাচ্ছে না। পুলিশের ধারণা, অটোরিকশাটি ছিনতাই করার জন্যই ওই স্কুলছাত্রকে গলা কেটে হত্যা করেছে ছিনতাইকারীরা।

নিহত শাওন মিয়া নরসিংদী শহরের মীর এমদাদ উচ্চবিদ্যালয়ের ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র ও রাঙামাটি এলাকার মো. হাইওর মিয়ার ছেলে। তাদের গ্রামের বাড়ি ময়মনসিংহের নান্দাইলে।

বিজ্ঞাপন

ওই ছাত্রের পরিবারের সদস্যরা বলেন, শাওন পড়াশোনার পাশাপাশি সুযোগ পেলে প্রায়ই তার বাবার অটোরিকশাটি চালাত। গতকাল বুধবার সকালে তার বাবা অসুস্থ থাকায় অটোরিকশাটি নিয়ে বাসা থেকে সে বের হয়। সন্ধ্যার দিকে শহরের শাপলা চত্বর এলাকায় তাকে অটোরিকশা চালাতে দেখেছিলেন পরিচিত ব্যক্তিরা। কিন্তু ওই রাতে শাওন আর বাসায় ফেরেনি। বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করেও তার সন্ধান পাওয়া যাচ্ছিল না। আজ সকালে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে কামারগাঁও কবরস্থানের পেছনে একটি লাশ পড়ে থাকার খবর পান স্বজনেরা। পরে সেখানে গিয়ে তাঁরা লাশটি শাওনের বলে শনাক্ত করেন।

পুলিশ বলছে, কামারগাঁও কবরস্থানের পেছনে গলাকাটা লাশ পড়ে থাকার খবরে তারা ঘটনাস্থলে যায়। পরে নিহতের স্বজনেরা এসে লাশটি শাওনের বলে শনাক্ত করেন। সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য শাওনের লাশ নরসিংদী সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায় পুলিশ। তার গলায় ধারালো কিছু দিয়ে আঘাত করা হয়েছে। অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে ওই কিশোরের মৃত্যু হয়।

নরসিংদী মডেল থানার উপপরিদর্শক আবদুল আলীম বলেন, অটোরিকশা ছিনতাইকারী চক্রের সদস্যরা শাওনের অটোরিকশা ছিনতাই করার জন্য তাকে গলা কেটে হত্যা করেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। তদন্তের পর বিস্তারিত জানা যাবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন