বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

এর আগে গত বছরের সেপ্টেম্বরে ৩ হাজার ৪১৭টি ক্লাস নিয়ে রাজবাড়ী প্রথম স্থান অর্জন করে। তালিকায় দ্বিতীয় হয় টাঙ্গাইল জেলা। তাদের ক্লাসের সংখ্যা ছিল ২ হাজার ৭৩৯। এ সপ্তাহে জেলায় সর্বোচ্চ ক্লাস নিয়েছেন মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ। তিনি রাজবাড়ী সদর উপজেলার চন্দনী ইউনিয়নের আফড়া ইসলামিয়া সিদ্দিকিয়া আলিম মাদ্রাসার গণিতের শিক্ষক হিসেবে কর্মরত আছেন। রাজবাড়ীতে গত বছর ১৮ এপ্রিল থেকে অনলাইনভিত্তিক শিক্ষা কার্যক্রম শুরু হয়।

জবাড়ী জেলায় এই সপ্তাহে সর্বোচ্চ ক্লাস নেওয়া সহকারী শিক্ষক মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ বলেন, ‘আমি শনিবার পর্যন্ত মোট ৭০০ ক্লাস নিয়েছি। সব সময় নিজের ওপর অর্পিত দায়িত্ব সঠিকভাবে পালনের চেষ্টা করেছি। সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার দিকনির্দেশনায় কাজ করেছি। রাজবাড়ী জেলা সারা দেশে প্রথম হওয়াতে খুব ভালো লাগছে। গত দুই সপ্তাহে আমি সবচেয়ে বেশি ক্লাস নিয়েছি। জেলাকে দেশসেরা করার ক্ষেত্রে নিজে অবদান রাখতে পেরে আনন্দ আরও বেড়ে গেছে। নিজেকে গর্বিত মনে হচ্ছে। তবে আমাদের এই কার্যক্রম ধরে রাখতে হবে।’

সদর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ইকবাল হোসেন বলেন, ‘আমি রাজবাড়ীর সন্তান। জেলার বিভিন্ন উপজেলায় চাকরি করেছি। শিক্ষকদের সঙ্গেও ভালো জানাশোনা আছে। তাঁরা খুব আন্তরিক। করোনা শুরু হওয়ার পর থেকেই কার্যক্রম হাতে নিয়েছিলাম। শিক্ষকদের কাছ থেকে ভালো সাড়া পেয়েছি। জেলা প্রশাসক বিষয়টি তদারক করেন। প্রতি মাসে এ বিষয়ে সভা অনুষ্ঠিত হয়। করোনাকালে সারা দেশে আবারও প্রথম হওয়ার মতো ভালো খবর পেয়ে খুব ভালো লাগছে।’

জেলা প্রশাসক দিলসাদ বেগম প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমি খুব খুশি। ছোট জেলা হওয়াতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানও কম। তবে শুরু থেকেই আমরা অনলাইন ক্লাস নেওয়ার বিষয়ে খুবই আন্তরিক। শিক্ষকেরাও আন্তরিক। আমরা আগেও প্রথম হয়েছিলাম। অনলাইনে ক্লাস নেওয়ায় শিক্ষকদেরও কোয়ালিটি (গুণমান) বেড়েছে। তাঁরা আগের চেয়ে ক্লাসে আরও ভালো পাঠদান করতে পারবে বলে বিশ্বাস করি। তবে সরাসরি ক্লাস নেওয়া শুরু হলে অনলাইনে পাঠদান চলার কথা নয়।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন