এ সময় উপস্থিত ছিলেন বামনা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান সাইতুল ইসলাম, বামনা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) বিবেক সরকার, বামনা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো.বশিরুল আলম প্রমুখ।

ওই তিনজনের বড় রুবি আক্তার বলেন, ‘আমাদের মা-বাবা নেই। বাবার বাড়ি ও জমি সব আমার স্বজনেরা দখল করে রেখেছিলেন। ওই জমি দখলমুক্ত করতে প্রশাসনসহ বিভিন্ন স্থানে ঘুরেও কোনো লাভ হয়নি। বাধ্য হয়ে ডিসি অফিসের সামনে অনশনে বসেছিলাম। পুলিশ সুপার স্যার এসে আমাদের জমি দখলমুক্ত করার আশ্বাস দিলে আমরা অনশন প্রত্যাহার করি। এরপর স্যার আমাদের গ্রামের বাড়িতে নিয়ে আসেন। আগামীকাল (বৃহস্পতিবার) স্যারের অর্থায়নে আমাদের জমিতে একটি ঘর তুলতে শুরু করব।’

রুবি আক্তার আরও বলেন, ‘আমরা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করতে চাই। আমাদের একটি স্থায়ী আয়ের পথ দরকার।’

বরগুনা জেলা পুলিশ সুপার জাহাঙ্গীর মল্লিক প্রথম আলোকে বলেন, ‘মানবিক কারণে ওই তিন বোনের পাশে দাঁড়িয়েছি। আমরা তাঁদের ১৫ শতাংশ জমি বুঝিয়ে দিতে পেরেছি। জেলা পুলিশের অর্থায়নে তাঁদের থাকার জন্য দু-এক দিনের মধ্যে একটি ঘর তুলে দেব।’

বরগুনার জেলা প্রশাসক হাবিবুর রহমান বলেন, অনশন শুরু করার পর তিনি ওই তিন বোনকে তাঁর কার্যালয়ে ডেকেছিলেন। তবে তাঁরা কেউ আসেননি। পরে তিনি নিজে গিয়ে তাঁদের সঙ্গে কথা বলার চেষ্টা করলেও, কেউ কথা বলতে রাজি হননি। ওই তিন বোন এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ দাবি করেছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন