default-image

রাজশাহীর বাগমারায় নির্যাতনের শিকার পান ব্যবসায়ী টিপু সুলতানের (২৮) দাখিল করা এজাহারটি অবশেষে তালিকাভুক্ত হয়েছে। আজ মঙ্গলবার থানা-পুলিশ মামলাটি গ্রহণ করেন। পুলিশ ওই ব্যবসায়ীকে সহযোগিতারও আশ্বাস দিয়েছে।

এর আগে গতকাল সোমবার নিজ বাড়িতে সংবাদ সম্মেলন করে নিরাপত্তা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ এবং থানায় দাখিলকৃত এজাহারটি তালিকাভুক্ত করার দাবি করেন তিনি। এ নিয়ে প্রথম আলোর অনলাইন ও ছাপা সংস্করণে প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়।

পান ব্যবসায়ী টিপু সুলতান প্রথম আলোকে বলেন, সংবাদ প্রকাশের পর পুলিশ তাঁকে থানায় ডেকে পাঠায়। তবে শারীরিকভাবে অসুস্থ থাকার কারণে তিনি গতকাল থানায় যেতে পারেননি। আজ সকালে প্রতিবেশীদের সহযোগিতায় তিনি থানায় গেলে পুলিশ মামলাটি গ্রহণ করার কথা জানায়। পুলিশ ছিনতাই হওয়া টাকার বিষয়ে জানার পরই মামলাটি তালিকাভুক্ত করে। পরে পুলিশের সহযোগিতায় তিনি বাড়িতে পৌঁছান। তিনি বলেন, পুলিশের পক্ষ থেকে সুষ্ঠু তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।

ঘটনার দিন প্রতিপক্ষ ওই ব্যবসায়ীকে বেধড়ক পিটুনি দেওয়ার সময় প্লাস দিয়ে বাঁ হাতের তর্জনীর সামনের অংশ কেটে ফেলে। পায়ের বিভিন্ন স্থানে পেরেক ঢুকিয়ে নির্যাতন করে। এ ঘটনার পর তিনি থানায় আটজনের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দেন। তবে পুলিশ তদন্ত করার নামে তা রেকর্ড করতে সময়ক্ষেপণ করে।

বাগমারা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মোস্তাক আহম্মেদও মামলাটি তালিকাভুক্ত করার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেছেন, সুষ্ঠু তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

বিজ্ঞাপন

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, উপজেলার মচমইল গ্রামের পান ব্যবসায়ী টিপু সুলতান ৭ এপ্রিল জনতা ব্যাংকের মোহনগঞ্জ শাখা থেকে সাত লাখ টাকা তুলে মচমইল হাটে যাচ্ছিলেন। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে মচমইল বেলতলা মোড়ে পৌঁছালে প্রতিপক্ষ সুমন হোসেন ও পলাশ মীর নামের দুই যুবক তাঁকে ঘিরে ধরেন। এ সময় তাঁদের সঙ্গে আরও কয়েকজন যোগ দেন। তাঁরা টিপু সুলতানকে হাতুড়ি ও লোহার রড দিয়ে পিটিয়ে জখম করেন। তাঁর কাছে থাকা পান কেনার সাত লাখ টাকা নিয়ে চলে যান। ওই পথ দিয়ে যাওয়ার সময় লোকজন তাঁকে রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ভর্তি করেন। অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়।

পুলিশ আমাকে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে। কেউ হুমকি দিলে পুলিশকে জানানোর জন্য বলা হয়েছে। পুলিশের আচরণে এবং মামলাটি তালিকাভুক্ত করায় আমি খুশি।
টিপু সুলতান, নির্যাতনের শিকার পান ব্যবসায়ী

টিপু সুলতান জানান, পূর্বশত্রুতার জেরে তাঁর ওপর নির্যাতন চালানো হয়। তিনি এখন বাড়িতে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। ঘটনার দিন বেধড়ক পিটুনি দেওয়ার সময় প্লাস দিয়ে বাঁ হাতের তর্জনীর সামনের অংশ কেটে ফেলা হয়। পায়ের বিভিন্ন স্থানে পেরেক ঢুকিয়ে নির্যাতন করা হয়। এ ঘটনার পর তিনি থানায় আটজনের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ দেন। তবে পুলিশ তদন্ত করার নামে তা রেকর্ড করতে সময়ক্ষেপণ করে। তবে প্রথম আলোয় সংবাদ প্রকাশের পর পুলিশ মামলাটি তালিকাভুক্ত করে।

এই পান ব্যবসায়ী বলেন, পুলিশ তাঁকে সহযোগিতার আশ্বাস দিয়েছে। কেউ তাঁকে হুমকি দিলে পুলিশকে জানানোর জন্য বলা হয়েছে। পুলিশের আচরণে এবং মামলাটি তালিকাভুক্ত করায় তিনি খুশি বলে জানান।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন