ফতেপুর ইউনিয়নের বৈলানপুর এলাকায় এ অভিযান চালানো হয়। সরেজমিনে দেখা যায়, পাইপের মাধ্যমে নদ থেকে বালু এনে কুর্ণী-ফতেপুর সড়কের পশ্চিম পাশে ফেলা হয়েছে। এ জন্য রাস্তার ওপর দিয়ে পাইপ নেওয়া হয়েছে। স্থানীয় লোকজন জানান, বৈলানপুর গ্রামের সোহেল মৃধা তাঁর সহযোগীদের নিয়ে খননযন্ত্র দিয়ে নদ থেকে বালু তুলে অন্যত্র বিক্রি করছিলেন। নদের পশ্চিম পাশে খননযন্ত্রটি বসানো হয়। সেখান থেকে বালু আনার জন্য তিনি আবাদি জমির ওপর দিয়ে প্রায় এক কিলোমিটার এলাকাজুড়ে পাইপ বসান।

এ বিষয়ে মুঠোফোনে সোহেল মৃধা বলেন, আবাদি জমি ও ভাঙনকবলিত বাড়ির মালিকদের সঙ্গে সমন্বয় করে করে তিনি বালু তুলছিলেন।

এলাকাবাসীর মাধ্যমে খবর পেয়ে গতকাল দুপুরে ভ্রাম্যমাণ আদালত সেখানে অভিযান চালিয়ে খননযন্ত্র ও প্রায় দেড় হাজার মিটার পাইপ ধ্বংস করেন। সহকারী কমিশনার জুবায়ের জানান, ভ্রাম্যমাণ আদালতের উপস্থিতি টের পেয়ে বালু তোলার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিরা দ্রুত সটকে পড়েন। এ কারণে কাউকে আটক করা যায়নি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন