default-image


যদি কওমি মাদ্রাসাগুলোকে ব্যবহার করে কেউ অরাজকতা ও অপরাধমূলক কাজ করে, তাহলে তাদের সর্বোচ্চ ডিগ্রির স্বীকৃতি, রাজনৈতিক ও সামাজিক স্বীকৃতি পুনরায় বিবেচনা করে দেখা হবে বলে মন্তব্য করেছেন শিক্ষা উপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী।  

আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে করোনার দ্বিতীয় টিকা গ্রহণের পর মহিবুল হাসান চৌধুরী সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ মন্তব্য করেন।  

চট্টগ্রাম–৯ কোতোয়ালি আসনের সাংসদ মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, ‘আপনারা জানেন ইতিমধ্যে কওমি শিক্ষার সর্বোচ্চ ডিগ্রিকে আমরা জাতীয়ভাবে সম্মান দিয়ে ইসলামি স্টাডিজের মাস্টার্সের সমমর্যাদা দিয়েছি। তারপরও যদি এ ধরনের অপরাধমূলক কার্যক্রম প্রতিষ্ঠানগুলো করতে থাকে, এগুলোকে ব্যবহার করে কেউ অপরাধমূলক কাজ করতে থাকে, তাহলে তার ডিগ্রির স্বীকৃতি এবং সামাজিক ও রাজনৈতিক স্বীকৃতি বিবেচনা করে দেখতে হবে।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে মহিবুল হাসান চৌধুরী বলেন, করোনা নিয়ন্ত্রণের জন্য কওমি মাদ্রাসাসহ সব আবাসিক–অনাবাসিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তারা যদি না মানে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ইতিমধ্যে পুলিশকে বলে দেওয়া হয়েছে। আজ (কাল) থেকে এগুলো পর্যবেক্ষণ করা হবে।

বিজ্ঞাপন

প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, ‘ইতিমধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মহান জাতীয় সংসদে দাঁড়িয়ে সাম্প্রতিক ঘটনা নিয়ে বিবৃতি দিয়েছেন। তাঁর বক্তব্য রাখার পর আমরা কে কী বলছি, সেগুলো আসলে গৌণ। তিনি নির্দেশনা দিয়েছেন, যথাযথ কর্তৃপক্ষ সেই নির্দেশনা মেনে ব্যবস্থা নিচ্ছে। আপনারা জানেন, ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকজনকে, যারা অরাজকতা করেছে, জ্বালাও-পোড়াও, সন্ত্রাস করেছে, তাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। আমরা আশ্বস্ত করতে চাই, রাঙ্গুনিয়ায় আমাদের একজন আওয়ামী লীগ নেতা আক্রমণের শিকার হয়ে নিহত হয়েছেন। স্বাধীনতার ৫০ বছর পরও স্বাধীনতাবিরোধী শক্তি কাদের ঘাড়ে বন্দুক রেখে সাধারণ মানুষকে ভোগান্তিতে ফেলছে, হত্যা করার জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে, তা আমরা দেখেছি।’

মামুনুল প্রসঙ্গে তিনি আরও বলেন, ‘কে কত বড় নেতা, তার কী মান, সেটা আমাদের দেখার বিষয় নয়। মামুনুল হককে আমরা প্রতিরোধ করেছিলাম। সে ভয়ে চট্টগ্রামে আসেনি। কিন্তু এখন দেখা যাচ্ছে, সে একটা চরিত্রহীন ব্যক্তি। সে মিনিটে একজনকে তার প্রথম স্ত্রী বানায়, একজনকে দ্বিতীয় স্ত্রী বানায়।’

মাদ্রাসার ছাত্রদের ব্যবহার করা হচ্ছে উল্লেখ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, সাধারণ মাদ্রাসাছাত্রদের ব্যবহার করা হচ্ছে। তাদের কারণে ছাত্ররা মারা গেছে। আপনাদের শুধু উসকানি দিয়ে রাস্তায় নামিয়ে দেওয়া হচ্ছে। দাঙ্গা–হাঙ্গামায় ব্যবহার করা হচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন