default-image

পঞ্চগড়ে দুপুরের খাবার খেয়ে অস্বাভাবিক ঘুমে অচেতন হয়ে পড়েছেন নারী, শিশুসহ একই পরিবারের আটজন। সোমবার পঞ্চগড় সদর উপজেলার গড়িনাবাড়ি ইউনিয়নের ফুটকিবাড়ি-মণ্ডলপাড়া এলাকায় আবদুল কুদ্দুসের পরিবারে এ ঘটনা ঘটে।

বিষয়টি জানতে পরে স্বজন ও স্থানীয় লোকজন সোমবার সন্ধ্যা সাতটার দিকে তাঁদের উদ্ধার করে পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। রাত ১০টায়ও তাঁদের চেতনা ফেরেনি। তাঁরা হলেন মণ্ডলপাড়া এলাকার সার ও কীটনাশক ব্যবসায়ী আবদুল কুদ্দুস (৪২), তাঁর মা কুলসুম বেগম (৬০), স্ত্রী শিরিন আক্তার (৩৫), ছেলে ইউসুফ আলী (৪), ছোট ভাই আবদুস সাত্তার (৩০), আনোয়ার হোসেন (২৭), তাঁর স্ত্রী সুমা বেগম (২২) ও ছেলে আল অমিন (৩)।

আবদুল কুদ্দুসের মামাতো ভাই হাসানুজ্জামান বলেন, প্রতিদিনের মতো আবদুল কুদ্দুসের পরিবারের সবাই সোমবার দুপুরের খাবার খান। পরে কুদ্দুস ও তাঁর ছোট ভাই আনোয়ার হোসেন ফুটকিবাড়ি বাজারে সার ও কীটনাশকের দোকানে চলে যান। বিকেলে এই দুই ভাইয়ের অস্বস্তি ও ঝিমুনি ভাব অনুভূত হওয়ায় তাঁরা বাড়ি ফেরেন। এসে দেখেন, সবাই ঘুমাচ্ছেন। একপর্যায়ে তাঁরা দুজনও অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে স্থানীয় লোকজন ও আত্মীয়স্বজন তাঁদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যান।

আবদুল কুদ্দুসের মামা সাইদুল ইসলাম বলেন, ‘কেউ শত্রুতামূলক বা চুরির উদ্দেশ্যে টিউবওয়েলের পানি বা অন্য কোনো খাবারের সঙ্গে চেতনানাশক কোনো কিছু মিশিয়ে দিয়েছেন বলে আমরা ধারণা করছি। বিষয়টি থানায় জানানো হয়েছে।’

পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের চিকিৎসা কর্মকর্তা কাওসার আহাম্মেদ বলেন, ‘অসুস্থ সবাই ঘুমের ওষুধজাতীয় কোনো কিছু খেয়েছেন বলে মনে হচ্ছে। প্রয়োজন অনুযায়ী চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। আশা করছি, ধীরে ধীরে তাঁরা স্বাভাবিক অবস্থায় ফিরে আসবেন।’

পঞ্চগড় সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু আককাস আহমদ বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0