default-image

অ্যাসিড নিক্ষেপ করে এক নারীকে ঝলসে দেওয়ার অপরাধে নারায়ণগঞ্জে চারজনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। বৃহস্পতিবার বিকেলে নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালতের বিচারক বেগম সাবিনা ইয়াসমিন এ রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিরা হলেন নারায়ণগঞ্জ জেলার মন্টু মিয়ার স্ত্রী মনোয়ারা বেগম, জামালপুরের মাদারগঞ্জ এলাকার মধু মিয়ার স্ত্রী সুন্দরী বেগম, ফতুল্লা থানার বেবীর বাড়ির ভাড়াটে এরশাদ ও তাঁর স্ত্রী সেফালী বেগম ওরফে সাফিয়া বেগম। রায় ঘোষণার সময় মনোয়ারা বেগম আদালতে উপস্থিত ছিলেন, অন্যরা পলাতক।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, পূর্বশত্রুতার জের ধরে ২০০৫ সালের ৯ জানুয়ারি দিবাগত রাত একটার দিকে নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার ইসদাইর বাজারের পাশের বেবী বেগমের বাড়ির ভাড়াটে রোনজিনা বেগমের ঘরের বেড়া কেটে প্রবেশ করেন আসামিরা। ঘুমন্ত অবস্থায় অ্যাসিড ছুড়ে মারলে রোনজিনা বেগমের বাঁ চোখ, বাঁ গাল, কপাল ও বাঁ হাত ঝলসে যায়। এতে তাঁর বাঁ চোখ নষ্ট হয়ে যায়। ঘটনার পর পালিয়ে যাওয়ার সময় বাদীর স্বামী আবদুল বারেক আসামিদের দেখে চিনে ফেলেন। এ ঘটনায় ওই বছরের ২১ জানুয়ারি অ্যাসিড অপরাধ দমন আইনে ফতুল্লা মডেল থানায় মামলা হয়।

নারায়ণগঞ্জের অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ দ্বিতীয় আদালতের রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী (এপিপি) জাসমিন আহমেদ প্রথম আলোকে বলেন, অ্যাসিড নিক্ষেপের মামলায় আদালত সাক্ষ্যপ্রমাণের ভিত্তিতে চার আসামিকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দিয়েছেন। রায় ঘোষণাকালে তিন আসামি পলাতক ছিলেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0