বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সদর উপজেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয় ও স্থানীয় সূত্র জানায়, ১১ নভেম্বর শরীয়তপুর সদর উপজেলার আংগারীয়া ইউনিয়ন পরিষদের নির্বাচন। ওই ইউপিতে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পেয়েছেন জেলা পরিষদের সদস্য আসমা আক্তার। মনোনয়ন না পেয়ে ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী হয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামী লীগের অপর সদস্য আনোয়ার হোসেন হাওলাদার। মনোনয়নপত্র জমা দেওয়ার পর থেকেই দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে বিরোধ শুরু হয়। আওয়ামী লীগের প্রার্থীর সমর্থকেরা ‘বিদ্রোহী’ প্রার্থীর নির্বাচনী প্রচারণায় বাধা দেওয়া শুরু করেন বলে অভিযোগ ওঠে।

এ বিষয়ে ‘বিদ্রোহী’ আনোয়ার হোসেন আজ সংবাদ সম্মেলনে বলেন, আওয়ামী লীগের প্রার্থী আসমা আক্তারের সমর্থকেরা গত ১৯ অক্টোবর তুলাতলা গ্রামে ও তুলতলা বাজারে, ২১ অক্টোবর দক্ষিণ ভাষানচর, ২৭ অক্টোবর নতুন হাট ও আংগারীয়া ইউনিয়ন পরিষদের সামনে এবং ২ নভেম্বর দক্ষিণ ভাষানচর এলাকায় তাঁর সমর্থকদের ওপর হামলা করেন। এতে অন্তত ১৫ জন আহত হন। প্রচারণার সময় তাঁর তিনটি মাইক ভাঙচুর করা হয়।

আনোয়ার হোসেন বলেন,‘আমি ছাত্রজীবন থেকে আওয়ামী লীগের জন্য কাজ করছি। কিন্তু দল আমাকে মূল্যায়ন করেনি। বিএনপি পরিবারের সদস্যকে মনোনয়ন দিয়ে নৌকার মাঝি করেছে। তাঁরা আমাকে মাঠে কাজ করতে দিচ্ছেন না। তাঁর কর্মীদের ওপর নিয়মিত হামলা করা হচ্ছে। প্রার্থীর স্বামী পুলিশ হাসপাতালের চিকিৎসক নির্বাচনী আচরণবিধি ভঙ্গ করে প্রচারণা চালাচ্ছেন, প্রভাব বিস্তার করছেন। থানায় আমার কর্মীদের ওপর হামলার অভিযোগ নেওয়া হচ্ছে না। বিষয়গুলো রিটার্নিং অফিসারকে লিখিতভাবে জানিয়েছি।’

‘বিদ্রোহী’ প্রার্থী আনোয়ার হোসেনের সমর্থকদের ওপর হামলা চালানোর অভিযোগের বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আসমা আক্তার প্রথম আলোকে বলেন, ‘ আনোয়ার হোসেনের কোনো প্রচার–প্রচারণায় হামলা করা হয়নি। তিনি মিথ্যা অভিযোগ করে আমার ও আমার পরিবারের ভাবমূর্তি নষ্ট করছেন। তাঁর সমর্থকেরা আমাদের নির্বাচনী কার্যালয় ভাঙচুর ও মিছিলে হামলা করেছেন। এ বিষয়ে মামলা করার প্রস্তুতি নিচ্ছি।’

জানতে চাইলে আংগারীয়া ইউপি নির্বাচনের রিটার্নিং অফিসার ও উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা তাজুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন,‘আংগারীয়া ইউপি নির্বাচনের এক স্বতন্ত্র প্রার্থী কয়েকটি লিখিত অভিযোগ করেছেন। যেহেতু এসব আইনশৃঙ্খলার বিষয়, তাই ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ইউএনও এবং ওসির কাছে অভিযোগ পাঠানো হয়েছে। তাঁরা বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে দেখবেন। আর আমি আওয়ামী লীগের প্রার্থীকে মৌখিকভাবে সতর্ক করে নির্বাচনী আচরণবিধি মেনে চলার আহ্বান জানিয়েছি।'

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন