আখাউড়া ইমিগ্রেশন ইনচার্জ আবদুল হামিদ এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ভারত থেকে আগত পাসপোর্টধারী যাত্রীদের মধ্যে যেসব যাত্রী কোভিড-১৯ টিকার দুই ডোজ সম্পন্ন করেননি, তাঁদের বাংলাদেশে প্রবেশ করলে নিজ খরচে ১৪ দিনের বাধ্যতামূলক প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে। তবে ভারত থেকে আগত যাত্রীদের মধ্যে যেসব যাত্রী কোভিড-১৯ দুই ডোজ টিকা (বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার জরুরি ব্যবহারের অনুমোদিত) ইতিমধ্যে সম্পন্ন করেছেন এবং ১৪ দিন অতিক্রান্ত হয়েছে, তাঁদের হোম বা প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিনে থাকতে হবে না।

অবশ্য ভারত থেকে আগত যাত্রীদের ৪৮ ঘণ্টা মেয়াদি আরটি–পিসিআরভিত্তিক নেগেটিভ কোভিড-১৯ রিপোর্ট (কিউআর কোডযুক্ত) সঙ্গে নিয়ে আসতে হবে।
আখাউড়া ইমিগ্রেশনে জারি করা নির্দেশনায় আরও বলা হয়, ভারত থেকে আগত পাসপোর্টধারী যাত্রীদের মধ্যে যাঁদের কোভিড-১৯–এর উপসর্গ থাকবে, তাঁদের আইসোলেশনে রেখে কোভিড-১৯ আরটি-পিসিআর পরীক্ষা করাতে হবে। এ ছাড়া ১৮ বছরের কম বয়সী যেসব যাত্রী বাংলাদেশে আসবে, তাদের পরিবারের অন্য সদস্যদের কোভিড-১৯ দুই ডোজ টিকা সম্পন্ন এবং ১৪ দিন অতিক্রম হয়ে থাকলে, তাদের ক্ষেত্রে হোম বা প্রাতিষ্ঠানিক কোয়ারেন্টিন শিথিল করা হয়েছে।

তবে ১২ বছরের কম বয়সী পাসপোর্টধারী যাত্রীর ক্ষেত্রে করোনা পরীক্ষা (আরটি-পিসিআর) করা বাধ্যতামূলক নয় মর্মে আখাউড়া ইমিগ্রেশনে আসা রোগনিয়ন্ত্রণ ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশনায় বলা হয়েছে।

এদিকে ‘অমিক্রন–আতঙ্কে’ আখাউড়া ইমিগ্রেশন চেকপোস্টে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

আখাউড়া উপজেলা স্বাস্থ্যও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা রাশেদুর রহমান জানান, ভারত থেকে আসা পাসপোর্টধারী যাত্রীদের করোনা নেগেটিভ সনদসহ নানা তথ্য সংগ্রহ করা হচ্ছে।