বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম বলেন, ‘পদ্মা সেতুতে সড়ক নির্মাণ, বিদ্যুৎ ও গ্যাস–সংযোগ এবং ওয়াকওয়ে নির্মাণের জন্য মার্চের আগে রেলপথের কাজ শুরুর অনুমতি দিতে চাচ্ছে না সেতু কর্তৃপক্ষ। রেলপথের কাজ শেষ করতে সময় লাগবে ৬ মাস। ফলে জুনের মধ্যে কাজ শেষ করা সম্ভব হবে না। তাই সেতুর সড়ক ও রেলপথ একসঙ্গে উদ্বোধন করা নিয়ে কিছুটা সংশয় তৈরি হয়েছে। তবে আমরা চেষ্টা করছি, সেতু কর্তৃপক্ষকে রাজি করাতে। যেন দুটি কাজ একসঙ্গেই শেষ করা যায়। সড়ক চালু হয়ে গেলে রেলপথ নির্মাণ করা কষ্টকর হবে। সেতুতে যান চলাচল শুর করলে যে কম্পন হবে, তাতে রেলপথের ঢালাইয়ের কাজে জটিলতা হবে।’

আজ সেতু এলাকায় পরিদর্শনের সময় রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলামের সঙ্গে মুন্সিগঞ্জ  অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (শ্রীনগর সার্কেল) মো. আসাদুজ্জামান, লৌহজং উপজেলা নিবার্হী কর্মকর্তা আবদুল আউয়াল, পদ্মা  সেতুর নিবার্হী প্রকৌশলী দেওয়ান আবদুল কাদের প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

পদ্মা সেতু দ্বিতলবিশিষ্ট। এর ভেতর দিয়ে যাবে ট্রেন। ওপরে চলবে যানবাহন। পদ্মা সেতু প্রকল্পের অধীনে যান চলাচল ও রেললাইন নির্মাণ হচ্ছে। আর দুই পাড়ের সঙ্গে রেলসংযোগ করছে রেলপথ মন্ত্রণালয়। ঢাকা থেকে কেরানীগঞ্জ ও পদ্মা সেতু হয়ে যশোর পর্যন্ত ১৭২ কিলোমিটার রেলপথ নির্মাণ প্রকল্প নেওয়া হয়েছে। এর নাম দেওয়া হয়েছে পদ্মা সেতু রেলসংযোগ প্রকল্প। প্রকল্পের সার্বিক অগ্রগতি ৪৩ দশমিক ৫০ শতাংশ। এই পথে ২০টি স্টেশন থাকবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন