বরিশাল নৌবন্দর কর্মকর্তা মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যাওয়ার জন্য বরিশালের বিভিন্ন রুটের বেশির ভাগ লঞ্চ ভাড়া হয়েছে। ২৪ জুন থেকে বরিশাল থেকে কেবল একটি লঞ্চ ঢাকায় যাতায়াত করবে। অন্যান্য রুটেও স্বল্পসংখ্যক লঞ্চ চলাচল করবে। তবে দিবা সার্ভিস গ্রিন লাইন পরিবহনের একটি নৌযান আগের মতোই যাত্রী পরিবহন করবে।

মোস্তাফিজুর রহমান আরও বলেন, ‘আমাদের হাতে তো আর লঞ্চ নেই। তা ছাড়া অধিকাংশ লঞ্চ পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যাবে, এটা সবাই জানেন। তাই এই দুই দিন যাত্রী কম যাতায়াত করবে। আশা করি, এতে কোনো সমস্যা দেখা দেবে না।’

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌ চলাচল যাত্রী পরিবহন সংস্থার (যাপ) সহসভাপতি ও বরিশাল মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সাইদুর রহমান বলেন, বরিশালসহ গোটা দক্ষিণাঞ্চল থেকে এক লাখ লোক পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান যোগ দেবে। এরই মধ্যে ৪৮টি লঞ্চ ভাড়া নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে বরিশাল নৌবন্দর থেকে ছেড়ে যাবে ১০টির মতো লঞ্চ। বাকিগুলো বিভাগের বিভিন্ন জেলা ও উপজেলা থেকে ছেড়ে যাবে।

সাইদুর রহমান আরও বলেন, শুক্রবার রাত ১০টা থেকে সমাবেশস্থলের উদ্দেশে এসব লঞ্চ ছেড়ে যাওয়া শুরু করবে। নিরাপত্তার কারণে শনিবার সকাল ৯টার আগে এসব লঞ্চকে পদ্মা সেতুর নিচ দিয়ে জনসভাস্থলে পৌঁছাতে হবে। যেসব লঞ্চ পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে যাচ্ছে না, সেসব লঞ্চে এ সময় যাত্রী পরিবহন করা হবে। তবে কতটি লঞ্চ এ সময় নিয়মিত যাত্রীদের পরিবহনে নিয়োজিত থাকবে, সে বিষয়ে এখনো চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হয়নি।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন