বিজ্ঞাপন

করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে সরকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করে। সেই সময় থেকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ও বন্ধ হয়ে যায়। আবাসিক হলগুলো থেকে শিক্ষার্থীরা চলে যান। তবে ক্যাম্পাসের আশপাশের এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে যেসব শিক্ষার্থী থাকতেন, তাঁদের অনেকেই সেসব বাসায় অবস্থান করে আসছিলেন। গত শুক্রবার বিশ্ববিদ্যালয়ের পার্শ্ববর্তী গেরুয়া গ্রামের বাসিন্দাদের সঙ্গে শিক্ষার্থীদের সংঘর্ষ ও পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনার পর পরিস্থিতি পাল্টে যায়। শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে জড়ো হয়ে আবাসিক হলের তালা ভেঙে সেখানে অবস্থান করতে শুরু করেন।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে ১৬টি আবাসিক হল রয়েছে। এর মধ্যে ছাত্রদের আটটিতেই ছাত্ররা থাকছেন। শনিবার ছাত্রীদের আটটি হলের তালা ভাঙা হলেও বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রশাসন সেগুলোতে তালা লাগিয়ে দেয়। গতকাল সোমবার বেলা পৌনে একটার দিকে বঙ্গমাতা বেগম ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলের ২০-২৫ জন আবাসিক ছাত্রী হলটির তালা ভেঙে আবারও সেখানে ওঠেন। বিকেলে প্রক্টরিয়াল টিম ও হলের প্রাধ্যক্ষ সেখানে গিয়ে ছাত্রীদের হল ছেড়ে যেতে অনুরোধ করলেও তাঁরা ছাড়েননি।

বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের সর্বশেষ অবস্থান জানতে চাইলে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রক্টর আ স ম ফিরোজ উল হাসান প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার অনুরোধ করছি। তারা হল ছাড়েনি। এ অবস্থায় কী পদক্ষেপ নেওয়া হবে সে নিয়ে সভা চলছে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের। সভা শেষে সিদ্ধান্ত জানানো হবে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন