default-image

মাদারীপুরের শিবচরে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে আপত্তিকর ছবি ছড়িয়ে দেওয়ায় কীটনাশক পান করে অসুস্থ হওয়া এক স্কুলছাত্রীর মৃত্যু হয়েছে। দুই দিন বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকার পর আজ রোববার ভোরে ওই ছাত্রীর (১৭) মৃত্যু হয়।

মরদেহের সুরতহাল প্রতিবেদন তৈরি করে ময়নাতদন্তের জন্য মাদারীপুর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ। দশম শ্রেণিপড়ুয়া ওই ছাত্রীর বাড়ি শিবচর উপজেলার পাঁচ্চর ইউনিয়নের একটি গ্রামে। তাঁর বাবা প্রবাসে থাকেন।

পুলিশ ও পারিবারিক সূত্র জানায়, শিবচর উপজেলার কাদিরপুর গ্রামের যুবক রনি ব্যাপারীর সঙ্গে ওই ছাত্রীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। একপর্যায়ে ছেলের পক্ষ থেকে বিয়ের প্রস্তাব দেওয়া হলে মেয়ের পক্ষ প্রত্যাখ্যান করে। তারপর থেকেই রনি ব্যাপারী সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে একটি ভুয়া আইডি খুলে মেয়েটির কিছু আপত্তিকর ছবি আপলোড করেন। এই ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় তার ঘরে থাকা কীটনাশক পান করে মেয়েটি।

গুরুতর অসুস্থ অবস্থায় তাকে প্রথমে শিবচর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। উন্নত চিকিৎসার জন্য শনিবার তাকে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠান চিকিৎসকেরা। অবস্থা সংকটাপন্ন হওয়ায় শনিবার রাতেই তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে আইসিইউ শয্যা খালি না পেয়ে রোববার ভোরে তাকে ঢাকার মিটফোর্ড হাসপাতালে নেওয়া হচ্ছিল। পথে অ্যাম্বুলেন্সেই তার মৃত্যু হয়।

বিজ্ঞাপন

স্থানীয় সূত্র জানায়, ভুয়া ওই ফেসবুক আইডি পরিচালনাকারী রনি ব্যাপারী ওই মেয়ের আত্মীয়। ফলে পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় এখনো কোনো লিখিত অভিযোগ করা হয়নি। তবে খবর পেয়ে শিবচর থানা–পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে মরদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য মাদারীপুর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

নিহতের মা বলেন, তাঁর মেয়েকে এর আগে ওই বখাটে রনির পরিবার বিয়ের প্রস্তাব দেয়। কিন্তু ওই বাড়িতে তাঁদের এক স্বজনের আগেই বিয়ে হওয়ায় সেখানে নতুন করে আত্মীয়তা করতে চাননি। এ কারণে রনি ক্ষিপ্ত হয়ে তাঁর মেয়ের কিছু ছবি ফেসবুকে ছেড়ে দেন এবং ছবিসহ আরও ভিডিও ফেসবুকে ছাড়ার হুমকি দেন।

অভিযোগের বিষয়ে রনি ব্যাপারী বলেন, তাঁর সঙ্গে ওই মেয়ের পরিচয় ছিল। কিন্তু কোনো প্রেমের সম্পর্ক ছিল না। ওই ছাত্রীর কোনো ছবিই তাঁর কাছে ছিল না। আর ওই ভুয়া আইডিটাও তাঁর নয়।

শিবচর থানার উপপরিদর্শক মো. রহমত আলী বলেন, লাশের ময়নাতদন্তের জন্য মাদারীপুর সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ব্যাপারে থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা করা হয়েছে। তবে পরিবার লিখিত অভিযোগ দিলে বিষয়টি তদন্ত করে দেখবেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন