বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, চায়ের দোকানে বসে ছিলেন সাংবাদিক নাসির। কাদের মির্জার ঘোষিত বসুরহাট পৌরসভা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক হামিদ উল্লাহ ওরফে হামিদের নেতৃত্বে তাঁর অনুসারীরা রিকশার চেইন, ক্রিকেট খেলার ব্যাট দিয়ে নাসিরকে পিটিয়ে আহত করেন।

নাসির উদ্দিনের ওপর হামলার অভিযোগ ভিত্তিহীন বলে দাবি করেন হামিদ উল্লাহ। আজ সোমবার দুপুরে প্রথম আলোকে তিনি বলেন, নাসিরসহ অন্য সব সাংবাদিকের সঙ্গে তাঁর সুসম্পর্ক রয়েছে। তাই হামলার প্রশ্নই ওঠে না। তবে তিনি শুনেছেন সাংবাদিক নাসির মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় আহত হয়েছেন।

এ বিষয়ে বক্তব্য জানার জন্য আবদুল কাদের মির্জার মুঠোফোনে একাধিকবার কল করা হলেও তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করা সম্ভব হয়নি।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইফুদ্দিন আনোয়ার বলেন, নাসির উদ্দিনের ওপর হামলার ঘটনা তিনি শুনেছেন। তবে নাসির উদ্দিন এ বিষয়ে থানায় কোনো অভিযোগ করেননি। অভিযোগ করলে তদন্ত করে আইনি পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

কয়েক মাস আগে কোম্পানীগঞ্জে আওয়ামী লীগের আবদুল কাদের মির্জা ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মিজানুর রহমান বাদলের মধ্যকার চলমান দ্বন্দ্ব-সংঘাতে পেশাগত দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে তরুণ সাংবাদিক বোরহান উদ্দিন মুজাক্কির গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যান। চার সাংবাদিকের বিরুদ্ধে বিস্ফোরক দ্রব্য আইনে মামলা করেন কাদের মির্জার অনুসারী। হামলার শিকার হয়েছেন একাধিক সাংবাদিক। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে কোম্পানীগঞ্জের অনেক সাংবাদিককে এখন সচরাচর বসুরহাটে দেখা যায় না। হামলার আশঙ্কায় কেউ কেউ রাতে ঠিকমতো বাড়িতে ঘুমান না।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন