default-image

ফেনীর সোনাগাজী উপজেলায় আমড়াগাছে ওঠার অভিযোগে সাত বছরের এক শিশুকে জুতাপেটা ও লাথি মেরে আহত করা হয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার চর চান্দিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

এ ঘটনায় করা মামলায় মসজিদের এক মুয়াজ্জিনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। গতকাল রাত সাড়ে আটটার দিকে উপজেলার দক্ষিণ চর চান্দিয়া এলাকা থেকে অভিযুক্ত গুরা মিয়াকে (৭৮) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তিনি ওই এলাকার স্থানীয় একটি মসজিদের মুয়াজ্জিন। আহত শিশুটির নাম জোবায়ের ইসলাম (৭)। সে চেয়ারম্যান পাড়া এলাকার জাহাঙ্গীর আলমের ছেলে।

শিশুটির পরিবার ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, গতকাল বিকেলে আমড়া পাড়তে গুরা মিয়ার গাছে ওঠে জোবায়ের ইসলাম। গাছে ওঠার অপরাধে গুরা মিয়া শিশুটিকে গাছ থেকে নামিয়ে জুতাপেটা করেন ও শরীরের বিভিন্ন স্থানে লাথি মেরে জখম করেন। আহত অবস্থায় শিশুটি বাড়িতে ফিরে বিষয়টি তাঁর মা–বাবাকে জানায়। পরে তাঁরা ঘটনা সম্পর্কে গুরা মিয়াকে জিজ্ঞাসা করলে তাঁদের দেখে নেওয়ার হুমকি দিয়ে তাড়িয়ে দেন। পরিবারের লোকজন আহত জোবায়েরকে স্থানীয়ভাবে চিকিৎসা করান।

বিজ্ঞাপন

এ ঘটনায় শিশুটির বাবা জাহাঙ্গীর আলম বাদী হয়ে গুরা মিয়াকে আসামি করে সোনাগাজী মডেল থানায় একটি মামলা করেন। অভিযুক্ত গুরা মিয়া উপজেলার চর চান্দিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান পাড়া এলাকার বাসিন্দা।

শিশুটির বাবা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, আমড়াগাছে ওঠার অপরাধে তাঁর ছোট ছেলে জোবায়েরকে জুতা দিয়ে পিটিয়ে ও লাথি মেরে শরীরের বিভিন্ন স্থানে জখম করেছেন গুরা মিয়া। তিনি এই ঘটনার উপযুক্ত শাস্তি দাবি করছেন।

সোনাগাজী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাজেদুল ইসলাম বলেন, গ্রেপ্তার গুরা মিয়াকে আজ বুধবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে ফেনী জেলা কারাগারে পাঠানো হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন