default-image

পিরোজপুর সদর উপজেলার কদমতলা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থীর তিন সমর্থককে কুপিয়ে জখম করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। গতকাল বৃহস্পতিবার রাত ৮টার দিকে কদমতলা ইউনিয়নের নিকারীর হাটে ইউপি নির্বাচন নিয়ে বিরোধের জের ধরে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

কদমতলা ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের চেয়ারম্যান প্রার্থী মো. হানিফ খান বলেন, গত বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কদমতলা ইউনিয়নের নিকারীর হাটে তাঁর কিছু সমর্থক বসে ছিলেন। এ সময় স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী শেখ সিহাব হোসেনের লোকজন সেখানে অবস্থান নিলে হানিফ খানের সমর্থকেরা পুলিশকে অবহিত করেন। খবর পেয়ে পুলিশ নিকারীর হাটে যায়। রাত ৮টার দিকে পুলিশ সেখান থেকে চলে যাওয়ার পর মো. সিহাব শেখের নেতৃত্বে ৩০–৩৫ জন হানিফ খানের সমর্থকদের ওপর হামলা চালান। প্রতিপক্ষের ধারালো অস্ত্রের কোপে সদর উপজেলার উত্তর পোরগোলা গ্রামের দেলোয়ার ব্যাপারী (৪৮), জামাল মল্লিক (২৫) ও রাসেল মোল্লা (২১) জখম হন। পরে পুলিশের সহযোগিতায় আহতদের উদ্ধার করে পিরোজপুর সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

বিজ্ঞাপন

স্থানীয় ব্যক্তিরা বলছেন, কদমতলা ইউনিয়নে চেয়ারম্যান প্রার্থী হানিফ খান ও মো. সিহাব শেখের সমর্থকদের মধ্যে গত দুই মাসে বেশ কয়েকটি সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনায় দুই পক্ষের অন্তত অর্ধশত ব্যক্তি আহত হন।

স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী শেখ সিহাব হোসেন অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, হানিফ খানের লোকজন প্রথমে তাঁর সমর্থকদের ধাওয়া করলে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। তবে এতে কেউ আহত হননি। তাঁরা নিজেরাই আহত সেজেছেন।

পিরোজপুর সদর হাসপাতালের চিকিৎসক রানা সাহা বলেন, আহত তিনজনের শরীরে জখমের চিহ্ন ছিল। তাঁদের চিকিৎসা শেষে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পিরোজপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নূরুল ইসলাম শুক্রবার বিকেলে প্রথম আলোকে বলেন, খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়েছিল। এ ঘটনায় কোনো লিখিত অভিযোগ পাওয়া যায়নি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন