বর্তমান সাধারণ সম্পাদক এ কে এম নূরুল আমিন ওরফে রাজু বলেন, ‘আমি এবারও সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী আছি। সম্মেলনে সমঝোতার কমিটির প্রস্তাব দেওয়া হয়। কিন্তু আমি এ সমঝোতা মেনে নিতে পারিনি। সমঝোতার কমিটি চাপিয়ে দিলে নেতা-কর্মীরাও তা মেনে নেবেন না। আমাদের দাবি, ভোটের মাধ্যমে নেতা নির্বাচন করা। তৃণমূল যাকে নির্বাচিত করবে, তাঁকে আমি মেনে নেব।’

কমলনগর উপজেলার হাজিরহাট উপকূল সরকারি কলেজ মাঠে এ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ। বিশেষ অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাইদ আল মাহমুদ। প্রধান বক্তা ছিলেন লক্ষ্মীপুর-২ (রায়পুর) আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুর উদ্দিন চৌধুরী।

কাউন্সিলর হিসেবে উপজেলার ৯টি ইউনিয়নের ৩১ জন করে ২৭৯ এবং উপজেলা কমিটির ৮২ জনসহ ৩৬১ জনকে তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। উপজেলার তিনটি ইউনিয়নের সাত নেতা জানান, তাঁরা এবারের সম্মেলনে সমঝোতার কমিটি চান না। তাঁদের দাবি নেতা-কর্মীদের মতামতে নেতা নির্বাচন হোক।

লক্ষ্মীপুর জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নুর উদ্দিন চৌধুরী বলেন, তৃণমূলের মতামতের ভিত্তিতে আজ কমিটি গঠন করা হবে। সেভাবেই প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন