বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় ও প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা গেছে, গতকাল রাত সাড়ে আটটার দিকে মাঝবাড়ীর চরকুলটিয়ায় প্রতিদ্বন্দ্বী দুই প্রার্থীর সমর্থকেরা প্রচারণা চালাচ্ছিলেন। একপর্যায়ে দুই পক্ষ মুখোমুখি হলে সংঘর্ষ বাধে।

আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী শরীফুল ইসলামের ভাই কাজী সাইফুল ইসলাম অভিযোগ করেন, শরীফুল ইসলাম গতবারও নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে বিজয়ী হন। কিন্তু শুরু থেকেই নৌকার সমর্থক-কর্মীদের হুমকি ও ভয়ভীতি দেখানো হচ্ছিল। গতকাল রাতে অতর্কিত তাঁদের কর্মীদের ওপর হামলা চালানো হয়। এতে অনেকে আহত হন। আহত ব্যক্তিদের মধ্যে তিনজনকে রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বথুনদিয়া বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক আওলাদ হোসেন খান বলেন, ‘আমার এক আত্মীয়কে মারধর করার খবর শুনে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হই। এ সময় ইউসুফ মেম্বারের ছেলে সোহেলের নেতৃত্বে আমার ওপর হামলা চালানো হয়। নৌকা প্রতীকের সমর্থন করার কারণে আমার ওপর এই হামলার ঘটনা ঘটেছে।’

অভিযোগ অস্বীকার করেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী ইউসুফ হোসেন। তিনি বলেন, ‘আমার কর্মীরা ওই এলাকায় ভোট চাইতে যায়। এ সময় তাঁদের ওপর হামলা করা হয়। নির্বাচনী অফিস ভাঙচুর করা হয়েছে। হামলাকারীরা আমার কয়েকজন কর্মীকে ঘেরাও করে রাখে। এ সময় তারা বেরিয়ে আসার সময় প্রতিপক্ষের কয়েকজন আহত হয়েছে।’ হামলায় তাঁর তিন কর্মী আহত হয়েছেন দাবি করে ইউসুফ হোসেন বলেন, তিনি থানায় লিখিতভাবে অভিযোগ করবেন।

কালুখালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নাজমুল হাসান বলেন, রাতে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পুলিশ পাঠানো হয়। পরিবেশ শান্তিপূর্ণ ও স্বাভাবিক রয়েছে। এ বিষয়ে কোনো পক্ষই আজ শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত লিখিত কোনো অভিযোগ করেনি। অভিযোগ পেলে এ বিষয়ে আইনগত পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন