default-image

ঢাকার সাভার উপজেলার আশুলিয়ায় ঝুট ব্যবসাকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ১২ জন আহত হয়েছেন। বিক্ষুব্ধ জনতা যুবলীগ নেতার সমর্থকদের ১৭টি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করেছে। আজ মঙ্গলবার সকালে ঢাকা রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ এলাকার (ডিইপিজেড) পাশে ভাদাইল গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশ ও স্থানীয় লোকজনের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, আশুলিয়া থানা যুবলীগের আহ্বায়ক কবির হোসেন সরকার ডিইপিজেড এলাকার এক্সপেরিয়েন্স নামের একটি পোশাক কারখানা থেকে ঝুট কিনতেন। সম্প্রতি কারখানা কর্তৃপক্ষ স্থানীয় ধামসোনা ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহসভাপতি ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য সাদেক ভুঁইয়ার ছেলে মনির হোসেনের সঙ্গে ঝুট বিক্রির চুক্তি করে। চুক্তি অনুযায়ী মনির লোকজন নিয়ে গতকাল সোমবার ঝুট বের করতে গেলে কবির সরকারের লোকজন বাধা দেন। পরে বাধা উপেক্ষা করে মনির হোসেন ওই কারখানা থেকে ঝুট বের করেন।

এতে ক্ষুব্ধ হয়ে অর্ধশতাধিক মোটরসাইকেল ও একটি পিকআপে করে কবির সরকারের লোকজন আজ সকাল নয়টার দিকে ভাদাইলে গিয়ে সাদেক ভুঁইয়ার বাড়ি ও কার্যালয়ে হামলা চালিয়ে ভাঙচুর করেন। এ সময় সাদেক ভুঁইয়ার লোকজন তাঁদের প্রতিহত করার চেষ্টা করলে উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বেধে যায়। একপর্যায়ে স্থানীয় মসজিদের মাইকে এলাকাবাসীর সাহায্য চাওয়া হলে লোকজন চারদিক থেকে ঘেরাও করে কবির সরকারের লোকজনের ওপর হামলা চালান। বেগতিক দেখে কবিরের লোকজন মোটরসাইকেল ও গাড়ি ফেলে পালিয়ে যান। সংঘর্ষে উভয় পক্ষের অন্তত ১২ জন আহত হয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

এ ব্যাপারে কবির সরকারের ভাষ্য, তিন বছর ধরে তিনি কারখানাটি থেকে ঝুট কিনে নিচ্ছেন। সাদেক ভুঁইয়া ও তাঁর লোকজন গতকাল থেকে ঝুট বের করতে বাধা দিচ্ছিলেন। আজ তাঁর ব্যবস্থাপক মোহাম্মদ সেলিম লোকজন নিয়ে ১২টি মোটরসাইকেলে করে কারখানায় যান। সেখান থেকে ভাদাইলের ওপর দিয়ে ফেরার পথে সাদেক ভুঁইয়ার লোকজন তাঁদের ওপর সশস্ত্র হামলা চালিয়ে কয়েকজনকে আহত করেন। এ সময় তাঁদের বেশ কয়েকটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করা হয়।

অন্যদিকে সাদেক ভুঁইয়ার ভাষ্য, কারখানার সঙ্গে কবির সরকারের চুক্তি ছিল গত ফেব্রুয়ারি মাস পর্যন্ত। নতুন চুক্তি অনুযায়ী গতকাল থেকে তাঁর ছেলের ঝুট বের করার কথা। সেই অনুযায়ী তাঁর ছেলে কারখানায় গেলে কবির সরকারের লোকজন তাঁকে বাধা দেন। কিন্তু তাঁর ছেলে বাধা উপেক্ষা করেই ঝুট বের করেন। এই ক্ষোভে শতাধিক মোটরসাইকেল ও পিকআপে করে কবির সরকারের লোকজন এসে তাঁর বাড়ি ও কার্যালয়ে হামলা চালান। এ সময় কয়েকটি গুলিও ছোড়া হয়। পরে স্থানীয় লোকজন তাঁদের ধাওয়া করলে তাঁরা পালিয়ে যান।

আশুলিয়া থানার পরিদর্শক (তদন্ত) জিয়াউল ইসলাম বলেন, ঝুট ব্যবসা নিয়ে দুই পক্ষের মধ্যে পাল্টাপাল্টি ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এতে কয়েকজন আহত হয়েছেন। জনতা কয়েকটি মোটরসাইকেল ভাঙচুর করেছে। বিষয়টি তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন