default-image

প্রথমবারের মতো ঢাকার সাভার উপজেলার আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটি গঠন করা হয়েছে। সাভার ভেঙে আশুলিয়া থানা গঠনের ১৫ বছর পর ৫১ সদস্যের এ কমিটি ঘোষণা করল জেলা আওয়ামী লীগ।

কমিটিতে যুবলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা ফারুক হাসানকে আহ্বায়ক ও সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলামকে যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে। তিন মাসের মধ্যে এ কমিটি পূর্ণাঙ্গ করতে বলা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার এ কমিটি ঘোষণা করা হয়।

দলের একাধিক নেতা-কর্মী বলেন, দীর্ঘদিন ধরে সাইফুলকে আহ্বায়ক করে আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক কমিটি গঠনের গুঞ্জন চলে আসছিল। কিন্তু হঠাৎ ফারুককে আহ্বায়ক করে থানা কমিটি ঘোষণা করা হলো, যা আগে থেকে কারও জানা ছিল না।

কমিটিতে যুবলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা ফারুক হাসানকে আহ্বায়ক ও সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাইফুল ইসলামকে যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে।
বিজ্ঞাপন

ফারুক সাভার পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি ও পৌর মেয়র আবদুল গনির ছেলে। তিনি যুবলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ছিলেন। সাইফুল আশুলিয়ার ধামসোনা ইউনিয়ন পরিষদের (ইউপি) চেয়ারম্যান। তিনি দীর্ঘদিন ধরে আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত।

আশুলিয়া থানা কমিটি গঠনের কারণে সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম কোন এলাকার মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকবে, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন দলের অনেক নেতা-কর্মী। তাঁরা মনে করেন, সাভার আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক কার্যক্রম আগের মতোই পুরো উপজেলায় বিস্তৃত রাখা দরকার।

জানতে চাইলে এ বিষয়ে স্পষ্ট করে কিছু বলতে পারেননি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হাসিনা দৌলা। তিনি বলেন, আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন হওয়ার পর বোঝা যাবে, কোন কমিটি কোন এলাকায় সাংগঠনিক কার্যক্রম চালাবে।

তবে জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বেনজীর আহমদ বলেন, আশুলিয়া আওয়ামী লীগ এ থানার পাঁচটি ইউনিয়ন এবং সাভার আওয়ামী লীগ এ থানার সাতটি ইউনিয়নে সাংগঠনিক কার্যক্রম চালাবে। তিনি আরও বলেন, দলের সর্বোচ্চ পর্যায়ের নির্দেশনা অনুযায়ী আশুলিয়া থানা কমিটি করা হয়েছে। এ কমিটি গঠনে তাঁদের কোনো হাত ছিল না।

২০০৫ সালে সাভার থানা ভেঙে আশুলিয়া থানা করা হয়।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0