শুধু এই একটি পরিবার নয়, বন্যায় বিপাকে পড়া জেলার ৭৩টি আশ্রয়কেন্দ্রে এবার ঈদ কাটবে সাত হাজার মানুষের। বন্যা শুরুর পর সরকারি হিসাবে ৬২০টি আশ্রয়কেন্দ্রে ১ লাখ ৬০ হাজার মানুষ আশ্রয় নিয়েছিল। বাড়িঘর থেকে পানি নামায় অনেকে ফিরে গেছে। এখন যারা আছে, তাদের বেশির ভাগেরই ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে, যে কারণে তারা ফিরতে পারছে না। শুধু আশ্রয়কেন্দ্র নয়, এ বাইরে জেলার বিভিন্ন স্থানে সড়কের পাশে আশ্রয় নেওয়া আরও দুই শতাধিক পরিবারের ঈদও একইভাবে কাটবে।

সুনামগঞ্জ বালিকা উচ্চবিদ্যালয় মছরবের পরিবার ছাড়া আরও পাঁচটি পরিবার আছে এখনো। নতুন হাসননগর গ্রামের বাসিন্দা শামসুল আলম (৪৫) বলেন, ‘ঘর থেকে পানি নামছে না। রান্নাঘর একেবারে ভেঙে গেছে। মেঝেতে থাকা দায়। বাড়ি ফিরতে আরও কয়েক দিন লাগবে। ভাবছি, ঈদের পরে যাইমু।’ একই এলাকার রিকশাশ্রমিক জুবের আহমদ (২৭) বলেন, ‘ঘর সংস্কারের কোনো টাকাপয়সা নাই। তাই যেতে পারছি না। এ জন্য ঈদ করতে হবে স্কুলেই।’ ঈদের প্রস্তুতি সম্পর্কে জানতে চাইলে শাহানারা বেগম (৫২) নামের এক নারী বলেন, ‘মাইনষের সায়-সাহায্য দিয়া চলরাম। আমরার ঈদ নাই। বন্যায় সবতা শেষ। বড় কষ্টে আছি।’

সদর উপজেলার জানিগাঁও গ্রামের বাসিন্দা ওয়াছির আলী (৪৫) বলেন, ঘরবাড়ি তলিয়ে যাওয়ায় সড়কের পাশে খুপরি তুলে পরিবার, গরু-ছাগলসহ আশ্রয় নিয়েছিলেন। ধান নষ্ট হয়েছে ৪০ মণের মতো। ঘরবাড়ির ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। ওয়াছির আলী বলেন, ‘এখন কীভাবে ঘরের কাজ করমু, কীভাবে খাইমু, এই নিয়ে চিন্তায় ঘুম নাই। ইলা বিপদে কোনো দিন পড়ছি না। ঘর না ঠিক করা পর্যন্ত ত সড়কেই থাকত অইব।’

হাওর বাঁচাও আন্দোলন সংগঠনের জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল হক বলেছেন, তিন মাস ধরে হাওর এলাকার মানুষের ওপর দিয়ে ঝড় যাচ্ছে। মানুষের ঘরবাড়ি নেই, কাজ নেই, খাবারের সংকট চলছে, সম্পদের বিপুল ক্ষতি হচ্ছে। অনেক মানুষ এখনো বাড়িঘরে ফিরতে পারছে না। এবার হাওর এলাকায় ঈদের আমেজ-আনন্দ কম।

সুনামগঞ্জ পৌরসভার মেয়র নাদের বখত বলেন, যাদের বাড়িঘর সম্পূর্ণ বিধ্বস্ত হয়েছে, আশ্রয়কেন্দ্রে তাদের থাকতে তো কোনো বাধা নেই। কিন্তু আশ্রয়কেন্দ্রে থাকলে ত্রাণ বেশি পাবে, কেউ কেউ এটা মনে করে আছে।

জেলা ত্রাণ ও পুনর্বাসন কর্মকর্তা মোহাম্মদ শফিকুল ইসলাম বলেন, বন্যার অনেক উন্নতি হয়েছে। বাড়িঘর, রাস্তাঘাট থেকে পানি নেমে গেছে। তবে এখনো হাজার সাতেক মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে আছে। তাদের কারও কারও বসতঘরের ক্ষতি হয়েছে।

সুনামগঞ্জে ১৬ জুন থেকে বন্যা ভয়াবহ রূপ নেয়। জেলাজুড়ে এই বন্যায় মানুষের বাড়িঘর, রাস্তাঘাট, ধান, মাছের ক্ষতি হয়। পৌর শহরে চার থেকে সাত ফুট পানি ছিল টানা চার দিন। এ সময় এই জেলা সারা দেশ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। মুঠোফোনের নেটওয়ার্ক ছিল বন্ধ। হাজার হাজার মানুষ ঘরবাড়ি ছেড়ে আশ্রয়কেন্দ্রসহ বিভিন্ন জায়গায় ঠাঁই নেয়। সরকারি হিসাবেই বন্যায় ৩০ লাখ মানুষ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। মানুষের ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে প্রায় ৫০ হাজার। ২৫ হাজার পুকুরের মাছ ভেসে গেছে। সড়ক ক্ষতিগ্রস্ত ২ হাজার ২০০ কিলোমিটার।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন