বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শনিবার বেলা সোয়া ১১টার দিকে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপি ও সহযোগী সংগঠনের ব্যানারে কয়েক শ নেতা-কর্মী ও সমর্থক বসুরহাট বাজারে একটি বিক্ষোভ মিছিল বের করেন। মিছিলটি বসুরহাট পৌরসভার হক বিপণিবিতানের সামনে থেকে শুরু হয়ে শহরের কয়েকটি সড়ক প্রদক্ষিণ করে। মিছিলকারীরা এ সময় সদ্য ঘোষিত উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি প্রত্যাখ্যান করে কেন্দ্রীয় নেতা এবং কমিটির বিভিন্ন সদস্যের বিরুদ্ধে স্লোগান দেন।

বিএনপির স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, শুক্রবার সন্ধ্যার দিকে কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা, বসুরহাট পৌরসভা, কবিরহাট উপজেলা ও পৌরসভা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করে জেলা বিএনপি। একই সঙ্গে উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ের আগের সব কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়। নতুন ঘোষিত আহ্বায়ক কমিটির আহ্বায়ক ও সদস্যসচিবের সাক্ষরে ইউনিয়ন, ওয়ার্ড পর্যায়ের সব কমিটি অনুমোদিত হবে বলে এ-সংক্রান্ত জেলা বিএনপির বিশেষ নির্দেশনায় বলা হয়।

সূত্র জানায়, জেলা বিএনপি ঘোষিত কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক করা হয়েছে উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক নুরুল আলম সিকদারকে। আর সদস্যসচিব করা হয়েছে মাহমুদুর রহমান ওরফে রিপনকে। ৪৮ সদস্যের আহ্বায়ক কমিটির আহ্বায়ক ও সদস্যসচিব ছাড়া পাঁচজনকে করা হয়েছে যুগ্ম আহ্বায়ক। বাকি ৪১ জনকে করা হয়েছে সদস্য। প্রথম সদস্য করা হয়েছে প্রয়াত বিএনপি নেতা মওদুদ আহমেদের স্ত্রী হাসনা জসিমউদ্‌দীন মওদুদকে। ২ নম্বর সদস্য করা হয়েছে জামায়াতের অনুসারী হিসেবে পরিচিত শিল্পপতি ফখরুল ইসলামকে।

দলীয় সূত্র জানায়, আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণার পরপরই শুক্রবার সন্ধ্যায় পদত্যাগের ঘোষণা দেন আহ্বায়ক কমিটির সদস্য কাজী একরাম। শনিবার তিনি সাংবাদিকদের বলেন, ঘোষিত কমিটিতে পদায়নের ক্ষেত্রে সিনিয়র-জুনিয়র মানা হয়নি। এতে পদত্যাগের সংখ্যাও আরও বাড়তে পারে। তাঁর মতে, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সাবেক সদস্য প্রয়াত মওদুদ আহমেদ ঘোষিত উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি কামাল উদ্দিন চৌধুরীকে এ কমিটিতে যথাযথ স্থানে রাখা হয়নি, যা রাজনৈতিক শিষ্টাচারবহির্ভূত।

আহ্বায়ক কমিটিতে সদস্যপদ পাওয়া ফখরুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, তিনি ছাত্রজীবনে বসুরহাট সরকারি মুজিব কলেজে ইসলামী ছাত্রশিবির থেকে ছাত্রসংসদে ভিপি পদে প্রার্থী ছিলেন। কর্মজীবনে আসার পর কখনো জামায়াতের কোনো পদে ছিলেন না। ২০০৯ সালে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তিনি ২০ দলীয় জোটের মনোনীত উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান পদের প্রার্থী ছিলেন।

ফখরুল ইসলামের দাবি, বিএনপির সঙ্গে তাঁর রাজনৈতিক সম্পর্ক দীর্ঘদিনের। তবে বিএনপির কোনো পদে ছিলেন না। এবার তাঁকে আহ্বায়ক কমিটির সদস্য করা হয়েছে। এ নিয়ে কিছু ব্যক্তি রাস্তায় নেমে প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন, যাঁরা দলের কোনো পর্যায়ের পদ-পদবিতে ছিলেন না। তিনি বলেন, প্রতিক্রিয়া দেখানোটা স্বাভাবিক। মওদুদ আহমেদের ঘোষিত কমিটির বিরুদ্ধেও অনেক বড় ঝাড়ুমিছিল হয়েছে।

কবিরহাট উপজেলা ও পৌর বিএনপিরও কমিটি ঘোষণা
শুক্রবার কবিরহাট উপজেলা ও পৌর বিএনপিরও আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণা করেছে জেলা বিএনপি। উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক করা হয়েছে কামরুল হুদা চৌধুরী ওরফে লিটনকে। আর সদস্যসচিব করা হয়েছে মো. কামাল হোসেনকে। ৪৯ সদস্যের এই কমিটিতে যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে ছয়জনকে। এ ছাড়া কবিরহাট পৌরসভা বিএনপির আহ্বায়ক করা হয়েছে মোস্তাফিজুর রহমান ওরফে মঞ্জুকে। সদস্যসচিব করা হয়েছে বেলায়েত হোসেন ওরফে খোকনকে। ৩৬ সদস্যের এই কমিটিতে যুগ্ম আহ্বায়ক করা হয়েছে পাঁচজনকে।

আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণার পাশাপাশি জেলা বিএনপির পক্ষ থেকে কমিটিগুলোকে কয়েকটি বিশেষ নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। নির্দেশনা অনুযায়ী আহ্বায়ক, সদস্যসচিব ও প্রথম যুগ্ম আহ্বায়কের স্বাক্ষরে ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটিগুলো অনুমোদিত হবে। আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণার মধ্য দিয়ে আগের উপজেলা, পৌরসভা, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড পর্যায়ের সব কমিটি বিলুপ্ত করা হয়েছে। আহ্বায়ক কমিটি ঘোষণার ৯০ দিনের মধ্যে কাউন্সিলের মাধ্যমে কমিটিগুলো গঠন করতে হবে।

কোম্পানীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. সাইফুদ্দিন আনোয়ার প্রথম আলোকে বলেন, বিএনপির কিছু লোক একটি ব্যানার নিয়ে মিছিল বের করে ছবি তুলেছেন বলে তিনি শুনেছেন। তবে এ নিয়ে কোনো অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। কয়েক মিনিটের মধ্যেই তাঁরা সড়ক থেকে সরে গেছেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন