বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

শিশুটির নানা মো. শাহাবুদ্দিন বলেন, ঘটনার সময় ইয়াছিনের মা তাঁর কর্মস্থলে ছিলেন। সন্ধ্যার পর তিনি (শাহাবুদ্দিন) বাড়ি থেকে বের হয়ে স্থানীয় একটি বাজারে যান। একই সময়ে ঘরে মাগরিবের নামাজ আদায় করছিলেন ইয়াছিনের নানি। এই ফাঁকে ইঁদুর মারতে ঘরে রাখা বিষ মেশানো মুড়ি খেয়ে ফেলে ইয়াছিন। মুড়ি খাওয়ার পর কান্না শুনে তার নানি কাছে যান। আশপাশে ইঁদুরের বিষ মাখানো মুড়ি ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকতে দেখে দ্রুত তাকে হাসপাতালে নেওয়ার পথে সে মারা যায়।

পরিবারের বরাত দিয়ে শ্রীপুর থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মাহফুজ ইমতিয়াজ ভূঁইয়া প্রথম আলোকে বলেন, ইঁদুরের বিষ মুড়িতে মাখানো ছিল। শিশুটি সেই মুড়ি খেয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে। এরপর তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় পরিবারের সদস্যদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই লাশ তাঁদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন