বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কৃষিমন্ত্রী বলেন, দীর্ঘ দেড় বছর ধরে করোনার কারণে আওয়ামী লীগের অনেক জেলা, উপজেলা, পৌর, ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড কমিটির সম্মেলন শেষ করা যায়নি। অনেক কমিটিই মেয়াদোত্তীর্ণ। এই মুহূর্তে করোনার সংক্রমণ অনেকটা কমে এসেছে, এখন স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাজ শুরু করতে হবে। কাউন্সিলের মাধ্যমে নতুন কমিটি গঠন করে দলকে আরও সুসংগঠিত করতে হবে। একই সঙ্গে ছাত্রলীগ, যুবলীগ, কৃষক লীগসহ দলের সহযোগী সংগঠনকে আরও সুসংগঠিত করতে হবে।

অসৎ, সুযোগসন্ধানী ও সুদিনের মৌমাছির মতো যাঁরা দলে ভিড়েছেন, তাঁদের কোনোভাবেই কমিটিতে স্থান দেওয়া হবে না বলে জানান আব্দুর রাজ্জাক। কমিটিতে তৃণমূলের পরীক্ষিত, নিবেদিত ও দুঃসময়ে যাঁরা পাশে ছিলেন, তাঁদেরই জায়গা দেওয়া হবে। একই সঙ্গে উপজেলার ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড সম্মেলন এবং কমিটি গঠনের কার্যক্রম দ্রুত করা হবে বলে জানান মন্ত্রী।

এদিকে বিএনপির উদ্দেশে আব্দুর রাজ্জাক বলেন, ‘আন্দোলন-সংগ্রামের নামে গাড়িতে, বাড়িতে, রাস্তায় নিরপরাধ মানুষকে পুড়িয়ে মারা, সন্ত্রাস ও নৈরাজ্যমূলক কর্মকাণ্ড থেকে আপনারা বিরত থাকুন। আগামী ২০২৩ সালের নির্বাচনের প্রস্তুতি নেন, নির্বাচনে অংশগ্রহণ করুন। দেশের জনগণ আপনাদের ভোটে বিজয়ী করলে আমরা আপনাদের স্বাগত জানাব। কিন্তু আন্দোলন-সংগ্রামের নামে সন্ত্রাস-নৈরাজ্যমূলক কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকারের পতন ঘটানো যাবে না, সে শক্তি বিএনপির নেই।’

মধুপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খন্দকার শফিউদ্দিনের সভাপতিত্বে সভায় সাধারণ সম্পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান ছরোয়ার আলম খান, পৌর মেয়র সিদ্দিক হোসেন খান প্রমুখ বক্তব্য দেন। এ সময় উপজেলা আওয়ামী লীগের অন্য নেতা–কর্মীরা উপস্থিত ছিলেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন