বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গ্রেপ্তার ব্যক্তিরা হলেন নাটোরের লালপুর থানার বিলমারিয়া গ্রামের মো. শাকিব বিশ্বাস (১৯), মমিনপুর গ্রামের মো. মেহেদী আলী (২১) ও রাজশাহী জেলার হরিরামপুর এলাকার মো. আল আমিন (২০)।

র‌্যাব সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলেছে, একাধিক ভুক্তভোগীর অভিযোগের ভিত্তিতে ওই প্রতারক চক্রকে আটকের চেষ্টা করে আসছিল র‌্যাব। র‌্যাবের নাটোর ক্যাম্প গোপন সংবাদের ভিত্তিতে জানতে পারে যে ওই চক্রের কয়েকজন সদস্য রাজশাহী নগরের চন্দ্রিমা থানাধীন আবাসিক এলাকায় অবস্থান করছেন। পরে গতকাল দিবাগত রাতে তাঁরা সেখানে অভিযান চালিয়ে তিন হ্যাকারকে গ্রেপ্তার করে। এ সময় আরও তিনজন পালিয়ে যান। এ সময় তাঁদের কাছ থেকে ইমোর অ্যাকাউন্ট হ্যাক করার কাজে ব্যবহৃত ২১টি মোবাইল ফোন, ৪৯টি সিম কার্ড, ৪টি মেমোরি কার্ড, ২টি ল্যাপটপ, ১টি ক্যামেরা, ১টি টেলিফোন, ১টি সিসি ক্যামেরাসহ ৪৫ হাজার টাকা জব্দ করা হয়।

র‌্যাব জানিয়েছে, গ্রেপ্তার তিনজন প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানান, পলাতক তিনজনসহ তাঁরা দীর্ঘদিন ধরে ইলেকট্রনিক ডিভাইস ও ইন্টারনেট সংযোগ ব্যবহার করে প্রবাসীসহ দেশের বিভিন্ন প্রান্তের ‘ইমো’ অ্যাপ ব্যবহারকারীদের অ্যাকাউন্ট হ্যাক করে আসছেন। পরে তাঁরা ইমো ব্যবহারকারীদের পরিচিতজনদের কাছ থেকে প্রতারণার আশ্রয় নিয়ে বিকাশের মাধ্যমে অর্থ হাতিয়ে নিতেন।

এ বিষয়ে র‌্যাবের নাটোর ক্যাম্পের কোম্পানি কমান্ডার মেজর মো. সানরিয়া চৌধুরী প্রথম আলোকে বলেন, রাজশাহী অঞ্চলের নাটোরের লালপুর, রাজশাহীর বাঘা ও চারঘাট এলাকার অনেক মানুষের ইমোর অ্যাকাউন্ট হ্যাক করা হয়েছে। ভুক্তভোগীরা নিয়মিতই এই ধরনের অভিযোগ করে আসছেন। ‘ইমো হ্যাকার’ চক্রটি এই এলাকাগুলোতে থাকলেও তাঁরা বর্তমানে স্থান পরিবর্তন করে অন্যত্র থাকছেন। গোপন সংবাদের ভিত্তিতে রাজশাহী নগরে অভিযান চালিয়ে ওই চক্রের তিন সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাঁদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলা দিয়ে আজ চন্দ্রিমা থানায় হস্তান্তর করা হয়েছে।

মেজর মো. সানরিয়া চৌধুরী আরও বলেন, এই হ্যাকাররা ইমো হ্যাক করে ভুক্তভোগীদের স্বজনদের কাছে বিপদের কথা বলে টাকা ধার চান এবং তাঁরা না বুঝে টাকা দিয়ে দেন। টাকা দেওয়ার পর জানতে পারেন, তাঁর ইমোর অ্যাকাউন্ট হ্যাক হয়েছে। এভাবে ইমো হ্যাকাররা দীর্ঘদিন ধরে মানুষের সঙ্গে প্রতারণা করে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নিয়েছে। ইমো থেকে কখনো ওটিপি কোড এলে কোডটি কারও কাছে শেয়ার করা থেকে বিরত থাকতে হবে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন