নিহত ইমন ওই এলাকার জালাল উদ্দিনের ছেলে। পেশায় ফার্নিচার মিস্ত্রি।
বাকলিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রাশেদুল হক প্রথম আলোকে বলেন, নিহত ইমন ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আসিফ দুজনই মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারী। রোববার রাতে ইয়াবার দাম ৫০ টাকা কমবেশি নিয়ে দুজনের মধ্যে তর্কাতর্কি হয়।

একপর্যায়ে দুজন দুজনকে ছুরিকাঘাত করেন। গুরুতর আহত অবস্থায় ইমনকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাঁকে মৃত ঘোষণা করেন। আহত আসিফ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তাঁকে এ মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হচ্ছে।

ওসি আরও বলেন, চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজের মর্গে নিহত ইমনের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

এদিকে ইমনকে হাসপাতালে আনা তাঁর চাচা সালাউদ্দিন রাতে প্রথম আলোকে বলেন, ইমনকে বাসা থেকে ডেকে নিয়ে খুন করা হয়েছে। ইমনের একটি গরু বিক্রির জন্য ছিল। কম দামে কিনতে না পারায় তাঁকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে। আটক আসিফকে মাদক ব্যবসায়ী দাবি করেন সালাউদ্দিন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন