default-image

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে করা মামলায় মা ও ছেলেকে ১০ বছর সশ্রম কারাদণ্ড, পাঁচ হাজার টাকা করে জরিমানা ও অনাদায়ে আরও ছয় মাসের কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। বুধবার দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার অতিরিক্ত দায়রা জজ প্রথম আদালতের বিচারক সাবেরা সুলতানা খানম এই রায় দেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত দুজন হলেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বাঞ্ছারামপুর উপজেলার মরিচাকান্দি গ্রামের ঝর্ণা বেগম (৫৩) ও তাঁর ছেলে সুমন মিয়া (২৭)। রায় ঘোষণার সময় সুমন আদালতে উপস্থিত ছিলেন। তবে ঝর্ণা বেগম পলাতক।

মামলার নথি ও আদালত-সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, ২০১৭ সালের ৭ নভেম্বর বাঞ্ছারামপুর উপজেলার দড়িকান্দি ইউনিয়নের মরিচাকান্দি গ্রামে র‌্যাব-১৪ অভিযান চালিয়ে ঝর্ণা বেগমের বাড়ি ও এর আশপাশ থেকে মাটি খুঁড়ে ৪০ হাজার ৫০০ ইয়াবা বড়ি জব্দ করে, যার তৎকালীন বাজারমূল্য ছিল প্রায় ১ কোটি ৬২ লাখ টাকা। এ সময় সুমন মিয়া ও তাঁর মা ঝর্ণা বেগমকে আটক করা হয়। এ ঘটনায় ৮ নভেম্বর মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা করে র‌্যাব। সেই মামলায় মা-ছেলেকে গ্রেপ্তারও দেখানো হয়। পরবর্তী সময়ে দুজনই জামিন পান। একই বছরের ৩১ ডিসেম্বর ঝর্ণা, সুমন ও তাঁদের সহযোগী ফরিদ মিয়াকে অভিযুক্ত করে অভিযোগপত্র দেন সংশ্লিষ্ট তদন্ত কর্মকর্তা। মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে এই আদালত এই রায় দেন।

মামলাটির রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী সহকারী সরকারি কৌঁসুলি (এপিপি) শরীফ হোসেন বলেন, আসামি ঝর্ণা বেগম ও সুমন মিয়া জামিনে বের হয়েছিলেন। রায় ঘোষণার সময় আদালতে সুমন উপস্থিত থাকলেও তাঁর মা পলাতক ছিলেন। পলাতক ঝর্ণা যেদিন গ্রেপ্তার কিংবা আত্মসমর্পণ করবেন, সেদিন থেকে তাঁর সাজা কার্যকর হবে। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় মামলার অপর আসামি ফরিদ মিয়াকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন