default-image

কক্সবাজারের উখিয়া উপজেলায় ১ হাজার ৮০০ ইয়াবা বড়িসহ আর্মড ব্যাটালিয়ন পুলিশের (এপিবিএন) তিন সদস্যকে আটক করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উপজেলার তাজনিমারখোলা রোহিঙ্গা শিবির থেকে এপিবিএনের কর্মকর্তারাই ওই তিনজনকে আটক করেন। পরে তাঁদের উখিয়া থানা-পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

আটক এপিবিএন সদস্যরা হলেন তাজনিমারখোলা রোহিঙ্গা শিবিরে নিরাপত্তার দায়িত্বে থাকা ৮ এপিবিএন ব্যাটালিয়নের উপপরিদর্শক (এসআই) সোহাগ, কনস্টেবল মিরাজ আহমদ ও মো. নাজিম। তাঁরা রোহিঙ্গাদের সঙ্গে মিশে ইয়াবা ব্যবসায় জড়িয়ে পড়েন বলে অভিযোগ রয়েছে।

কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. রফিকুল ইসলাম প্রথম আলোকে বলেন, রোহিঙ্গা শিবির থেকে ইয়াবাসহ তিনজন এপিবিএন সদস্যকে আটক করেছেন এপিবিএনের কর্মকর্তারাই। এরপর আটক তিনজনকে উখিয়া থানা-পুলিশে হস্তান্তর করা হয়। পরে তাঁদের জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

বিজ্ঞাপন

৮ এপিবিএন ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক মোহাম্মদ শিহাব কায়সার খান বলেন, ইয়াবাসহ আটক তিন সদস্যের বিরুদ্ধে মামলার পাশাপাশি তাঁদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

পুলিশ ও রোহিঙ্গা সূত্রে জানা যায়, বিভিন্ন সময় রোহিঙ্গাদের কাছ থেকে ইয়াবা বড়ি উদ্ধার করেন এসআই সোহাগ। সম্প্রতি উদ্ধার করা কিছু ইয়াবা বিক্রি করে দিতে তাজনিমারখোলা আশ্রয় শিবিরের (ক্যাম্প-১৩ ব্লক-এ) রোহিঙ্গা নেতা মো. একরামকে চাপ দিতে থাকেন এসআই সোহাগ। একরাম এ বিষয়ে অপারগতা প্রকাশ করলে এসআই সোহাগ নানাভাবে তাঁকে হুমকি দেন। বিষয়টি একরাম ৮ এপিবিএন ব্যাটালিয়নের সিনিয়র এএসপি কামরুল ইসলামকে জানান। পরে এপিবিএন কর্মকর্তারা অনুসন্ধানে মাঠে নেমে ১ হাজার ৮০০ ইয়াবা, কিছু জাল নোটসহ ওই তিন আর্মড পুলিশ সদস্যকে আটক করেন।

উখিয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আহমেদ সঞ্জুর মোরশেদ বলেন, ইয়াবাসহ আটক এপিবিএনের তিন সদস্যের বিরুদ্ধে গতকাল রাতে থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন