ঢাকা থেকে বগুড়াগামী একতা পরিবহনের বাসচালক আফজাল হোসেন বলেন, বর্তমানে মহাসড়ক চার লেনে উন্নীতকরণের কাজ চলমান থাকায় যানবাহন একটু ধীরগতিতে চলছে। আজ থেকে অতিরিক্ত যানবাহনের চাপে যানজটের সৃষ্টি হবে।

বঙ্গবন্ধু সেতুর টোল প্লাজা সূত্রে জানা গেছে, স্বাভাবিক অবস্থায় এই সেতু দিয়ে প্রতিদিন ১২ থেকে ১৩ হাজার যানবাহন পারাপার হয়। তবে বর্তমানে এর পরিমাণ অনেকটাই বাড়তে শুরু করেছে। এ কারণে বঙ্গবন্ধু সেতুর টোল প্লাজায় টোল আদায়ের জন্য লেনের সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে। স্বাভাবিক অবস্থায় তিন থেকে চারটি লেনে টোল আদায় করা হতো। তবে ঈদ সামনে রেখে টোল আদায়ের জন্য সাতটি লেনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এর বাইরেও মোটরসাইকেলের জন্য আলাদা একটি লেন রাখা হয়েছে।

সিরাজগঞ্জের হাটিকুমরুল হাইওয়ে থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা লুৎফর রহমান বলেন, ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন করতে পুলিশ দিনরাত ২৪ ঘণ্টা কাজ করছে। ঈদযাত্রায় মহাসড়ক যানজটমুক্ত রাখতে ঝুঁকিপূর্ণ ৩০টি স্থানে অতিরিক্ত ২০০ পুলিশ সদস্য কাজ শুরু করেছেন। যানবাহনের চাপ একটু বেশি হলেও চলাচল এখনো স্বাভাবিক।

এদিকে গত সোমবার বিকেল থেকে নবনির্মিত নলকা সেতুর একটি লেন চালু করা হয়েছে। সড়ক ও জনপথ বিভাগের (সওজ) নির্বাহী প্রকৌশলী দিদারুল আলম তরফদার বলেন, ঈদযাত্রায় মহাসড়কে তিন থেকে চার গুণ যানবাহন বেড়ে যেতে পারে। এ জন্য দ্রুত নলকা সেতুর একটি লেন খুলে দেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি পুরোনো নলকা সেতুটিও সচল রাখা হয়েছে।

সিরাজগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম বলেন, ঈদকে সামনে রেখে বগুড়া-সিরাজগঞ্জ মহাসড়কে যানবাহনের চাপ বাড়ছে। তবে ঈদযাত্রায় মহাসড়ক যানজটমুক্ত রাখতে ৩১টি ঝুঁকিপূর্ণ স্থান চিহ্নিত করা হয়েছে। এসব ঝুঁকিপূর্ণ স্থানে পুলিশ ২৪ ঘণ্টা দায়িত্ব পালন করছে। এরপরও মহাসড়কের ধারণক্ষমতার চেয়ে বেশি যানবাহনের চাপের কারণে মাঝেমধ্যেই একটু ব্যত্যয় ঘটছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন