ঈদের দিন বরগুনা শহরের নিম্ন আয়ের অন্তত ৬৫০ জনের হাতে রান্না করা খাবার তুলে দিয়েছেন সংগঠনের স্বেচ্ছাসেবকেরা। তাঁদের মধ্যে ৩০০ জনকে কাচ্চি বিরিয়ানি এবং ৩৫০ জনকে রান্না করা গরুর মাংস বিতরণ করা হয়। ঈদের খুশিকে ধর্ম–বর্ণনির্বিশেষে সবার মধ্যে বিলিয়ে দিতে সংগঠনটি এই উদ্যোগ নিচ্ছে প্রতিবছর।

হোপ বরগুনার স্বেচ্চাসেবীরা গতকাল রোববার দুপুর ১২টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত বরগুনা শহরের উপকণ্ঠে সোনাখালী লাকুরতলা শহরের হাসপাতাল সড়কের পেছনের বস্তি, গগন স্কুল এলাকা, কালীবাড়ি রোড, ডিকেপি সড়ক, ব্যাংক কলোনি, পিটিআই এলাকা, আমতলাপাড়, ক্রোক স্লুইস, হাজারবিঘা এলাকাসহ বিভিন্ন এলাকায় বিরিয়ানির ও রান্না করা মাংস তুলে দেন।

হোপ বরগুনা ২০২০ সালে করোনাকালে বিধিনিষেধ শুরু হলে এ কার্যক্রম শুরু করে। কার্যক্রমের আওতায় খাদ্যপণ্য সহায়তা, বৃদ্ধদের চিকিৎসা সহায়তায় অর্থ, শিশুদের জন্য দুধ, ডিম ও পুষ্টিকর রান্না করা খাবার, শিশু-বৃদ্ধদের মৌসুমি ফল, ঈদে শিশু ও বৃদ্ধদের নতুন জামাকাপড়, কিশোরীদের স্যানিটারি ন্যাপকিন, অন্তঃসত্ত্বা নারীদের জন্য পুষ্টিকর খাবার, খাদ্যপণ্য, বিধবা নারীদের এক মাসের খাদ্যপণ্য, ঘর তোলার সহায়তা, রমজানে ইফতারি বিতরণসহ নানা কার্যক্রম চালাচ্ছে।

সংগঠনটির সহপ্রতিষ্ঠাতা তরুণ উদ্যোক্তা রাকিবুল ইসলাম বলেন, ‘করোনার সময় মানুষের আয়রোজগার কমে যায়। এতে ২০২০ সালের ২৫ মার্চ থেকে আমরা কয়েকজন তরুণ মিলে হোপ বরগুনার কার্যক্রম শুরু করি। মাঠে কাজ করতে গিয়ে আমরা লক্ষ করেছি যে মানুষের শুধু খাদ্যপণ্য নয়, করোনাকালে পরিবারের প্রত্যেক সদস্যের আলাদা চাহিদা রয়েছে। এরপর আমরা সে অনুযায়ী সহায়তা দেওয়া শুরু করি। এর বাইরে মুসলমান সম্প্রদায়ের রমজান ও দুই ঈদে রান্না করা মাংস ও বিরিয়ানির ব্যবস্থা করেছি। করোনা এবং পরবর্তী অভিঘাতে আর্থিক সংকটে পড়া ধর্ম–বর্ণনির্বিশেষে সবাই আর্থিক সংকটে পড়েছেন। এই চিন্তা করেই এবারও এই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন