বিজ্ঞাপন

প্রণয় ভূষণ বলেন, উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে একজন রোগীও যেন অক্সিজেনের সংকটে না ভোগেন, তা নিশ্চিত করতে নির্দেশ দিয়েছেন সাংসদ। গত সোমবার সাংসদ ইকবাল হোসেন তাঁর নিজ অর্থায়নে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সকে ১০টি অক্সিজেন সিলিন্ডার ও বিপুল পরিমাণ মাস্ক উপহার দিয়েছেন। একই সঙ্গে ঈদ-পরবর্তী জরুরি প্রয়োজনে শিল্প শহরে অবস্থিত হাসপাতালকে আরও বেশি প্রস্তুত থাকতে পরামর্শ দিয়েছেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে পাওয়া সর্বশেষ হিসাব অনুযায়ী সেখানে করোনা রোগী ভর্তি আছেন মোট তিনজন। তাঁদের মধ্যে একজন নারী। তিনজনের মধ্যে বয়স্ক রোগী আছেন একজন। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, তাঁদের তিনজনেরই অক্সিজেন প্রয়োজন হয়েছে। এখনো জটিলতা না কাটায় তাঁদের হাসপাতালে থাকতে হবে। এ ছাড়া মঙ্গলবার ৫০ জনের নমুনা পরীক্ষায় ২৬ জনের করোনা পজিটিভ ফল এসেছে বলেও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সিনিয়র স্টাফ নার্স মোছা. নুরজাহানের ব্যবহৃত মুঠোফোনের লাউড স্পিকারের মাধ্যমে কথা হয় সেখানে ভর্তি থাকা একজন রোগীর (৭০) সঙ্গে। তিনি বেশ কিছুদিন ধরে হাসপাতলে অক্সিজেন সাপোর্ট নিচ্ছেন। তবে এখন নিশ্বাস অনেকটাই স্বাভাবিক। ওই রোগী প্রথম আলোকে বলেন, ‘আমরা যারা অসুস্থ, তারাই জানি, কতটা অসহায় মনে হয় নিজেকে। হাসপাতালে থেকেও ঈদে নতুন জামা পাওয়া যায়, খাবার পাওয়া যায়, এটা একটা নতুন অভিজ্ঞতা। রোগীরা এতে উৎফুল্ল থাকবে। উদ্যোগটা অনেক ভালো লাগল। দেশের সব হাসপাতালেই এমন ব্যবস্থা হলে ভালো হতো।’

সাংসদ ইকবাল হোসেন বলেন, ‘অক্সিজেন–স্বল্পতার জন্য মানুষের মৃত্যুর খবর শুনেছি। অনেক ব্যথিত হয়েছি এ ধরনের খবরে। শ্রীপুরে যেন একজন মানুষেরও অন্তত অক্সিজেনের সংকটে মৃত্যু না হয়, আমি সেটাই চাই। সেখানে থাকা রোগীদের মানসিকভাবে উৎফুল্ল রাখাসহ সব ধরনের সহযোগিতা নিশ্চিত করা আমাদের দায়িত্ব। ঈদে হাসপাতালে থাকা রোগীদের জন্য নতুন কাপড়, বিশেষ খাবার, ফলমূলসহ বিভিন্ন উপহার দেওয়ার ব্যবস্থা করেছি। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে বলেছি, আরও যা যা দরকার, তা যেন আমাকে জানায়। সব ব্যবস্থা করব।’

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন