default-image

ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলার রাজীবপুর ইউনিয়নের কয়েকটি গ্রামে ২৪ ঘণ্টায় খ্যাপা শিয়াল অন্তত ১০ জনকে কামড়িয়েছে। ঘটনাগুলো ঘটেছে গতকাল মঙ্গলবার থেকে আজ বুধবার ভোরের  মধ্যে। আহত ব্যক্তিরা ময়মনসিংহ নগরের সূর্যকান্ত (এসকে) হাসপাতালে জলাতঙ্কের চিকিৎসা নিয়েছেন।

গ্রামবাসী সূত্রে জানা যায়, হঠাৎ করে তাঁদের এলাকায় শিয়ালের উপদ্রব বেড়ে যাওয়ায় উজানচরনওপাড়া, কান্দাপাড়া ও মাইজপাড়া গ্রামের বাসিন্দাদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। শিয়ালের আক্রমণ থেকে রক্ষা পেতে অনেকেই লাঠি হাতে চলাফেরা করছেন। শিশু ও বৃদ্ধরা ঘরবন্দী দিন কাটাচ্ছেন।

উজানচরনওপাড়া গ্রামের মো. শফিউল আলম জানান, মঙ্গলবার গভীর রাতে শিয়াল তাঁকে কামড়িয়েছে। কুলসুম আক্তার (৪০) নামের এক নারী জানান, রাতে প্রকৃতির ডাকে বাইরে গেলে শিয়াল তাঁকে কামড়ে আহত করেছে। গ্রামের বাসিন্দা আবদুল গনি (৪০) জানান, বাজার থেকে বাড়ি ফেরার পথে তিনি শিয়ালের মুখোমুখি হন। শিয়াল তাঁর হাতে কামড় বসিয়ে দেয়। এতে তিনি গুরুতর জখম হন। এ ছাড়া আবদুল খালেক (৫০), আলাল উদ্দিন (৪৫), তসলিমা খাতুন (৪০), ফজিলা আক্তার (২৮), আমেনা খাতুন (৪৩), হাজেরা খাতুন এবং আরও এক নারী শিয়ালের কামড়ে আহত হয়েছেন।

বিজ্ঞাপন

ঈশ্বরগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা নুরুল হুদা খান জানান, শিয়ালের কামড়ে আহত হয়ে গত দুই দিনে অনেকেই হাসপাতাল থেকে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছেন। তবে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে অ্যান্টির‍্যাবিস ভ্যাকসিন (প্রতিষেধক) সরবরাহ নেই। আহত ব্যক্তিদের জেলা শহরের হাসপাতাল থেকে চিকিৎসা নেওয়ার জন্য পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা মো. আবু সায়েম জানান, ধারণা করা হচ্ছে, ওই এলাকায় কয়েকটি শিয়াল র‍্যাবিস রোগে (জলাতঙ্ক) আক্রান্ত। শিয়াল বা কুকুর এ রোগে আক্রান্ত হলে বিনা প্ররোচনায় মানুষজনকে কামড়াতে পারে। এ বিষয়ে এলাকার কয়েকজন সচেতন বাসিন্দা আক্রান্ত শিয়ালগুলোকে চিহ্নিত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার তাগিদ দিয়েছেন।

মন্তব্য পড়ুন 0