বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নিজাম উদ্দিন আহমেদ বলেন, রোহিঙ্গা শিবিরের পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণের পাশাপাশি দুর্বৃত্তের গুলিতে নিহত মুহিবুল্লাহর পরিবারের সঙ্গে দেখা করার কথা রয়েছে প্রতিনিধিদলের। পরে রোহিঙ্গা শিবির পরিদর্শন, রোহিঙ্গা প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলাপ, রোহিঙ্গাসংশ্লিষ্ট নানা পর্যায়ের কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করার কথা রয়েছে।

পুলিশ জানায়, গত ২৯ সেপ্টেম্বর রাতে লাম্বাশিয়া আশ্রয়শিবিরের ডি ব্লকে এআরএসপিএইচের কার্যালয়ে বন্দুকধারীদের গুলিতে নিহত হন মুহিবুল্লাহ (৪৮)। তিনি ওই সংগঠনের চেয়ারম্যান ছিলেন। পরদিন ৩০ সেপ্টেম্বর রাতে উখিয়া থানায় অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেন মুহিবুল্লাহর ছোট ভাই হাবিবুল্লাহ।

পুলিশ জানায়, মুহিবুল্লাহ হত্যার ঘটনায় পাঁচজন রোহিঙ্গা সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। এরপর দুই দফায় পাঁচজন রোহিঙ্গাকে তিন দিন করে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন উখিয়া থানার পুলিশ।

গতকাল শুক্রবার দুপুরে কক্সবাজার বিমানবন্দরে পৌঁছে পররাষ্ট্রসচিব মাসুদ বিন মোমেন সাংবাদিকদের বলেন, মুহিবুল্লাহ হত্যাকাণ্ড অনাকাঙ্ক্ষিত। সম্প্রতি শিবিরে যে ঘটনাগুলো ঘটেছে, এগুলোও মাঠপর্যায়ে জানা প্রয়োজন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন