এর আগে বিমানবাহিনীর শমশেরনগর স্টেশন কমান্ডার গ্রুপ ক্যাপ্টেন ওয়াসিম মোস্তাক সাংবাদিকদের ব্রিফ করেন। এ সময় তিনি বলেন, টানা কয়েক দিনের ভারী বর্ষণ ও ভারতীয় ঢলের পানিতে সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলার প্রায় সব কটি উপজেলা বন্যাক্রান্ত। আর্তমানবতার সেবায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, নৌবাহিনীর পাশাপাশি বাংলাদেশ বিমানবাহিনী ত্রাণ তৎপরতা ও পানিবন্দী মানুষকে উদ্ধার করবে। এ জন্য আজ প্রথমে সিলেট সদর, সুনামগঞ্জ সদর, তাহেরপুর, বিশ্বম্ভরপুর, দিরাই ও জামালগঞ্জ উপজেলা ওপর থেকে পর্যবেক্ষণ করা হবে। পর্যবেক্ষণ শেষে হেলিকপ্টারে ত্রাণকাজ ও উদ্ধারকাজ পরিচালনা করা হবে। নিয়মিত ত্রাণ তৎপরতা সহজ করতে শমশেরনগর বিমানবন্দরকে স্টেশন হিসেবে ব্যবহার করা হবে।

প্রেস ব্রিফিং শেষে দুপুর ১২টায় একটি বড় হেলিকপ্টারে করে পাইলট স্কোয়াড্রন লিডার নিয়াজ আহমেদের নেতৃত্বে বিমানবাহিনীর ২০ জন সদস্য বন্যাদুর্গত ৬টি উপজেলা পর্যবেক্ষণ করেন। এ সময় কয়েকজন সংবাদকর্মী সঙ্গে ছিলেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন