ভ্রাম্যমাণ আদালত সূত্রে জানা গেছে, ঘোষগাঁতী পাটবন্দরে পাইকারি মুদিদোকানি স্বপন দত্তের গুদামে সাড়ে ১২ হাজার লিটার ও অশোক সরকারের গুদামে ১৪ হাজার লিটার সয়াবিন তেল অবৈধভাবে মজুত ছিল। গোপন তথ্যের ভিত্তিতে বিষয়টি জানতে পেরে উপজেলা প্রশাসন ঘোষগাঁতী পাটবন্দরে অভিযান চালায়।

এ সময় ওই দুই ব্যবসায়ীসহ একই বাজারের শহীদুল ইসলাম নামের আরেক ব্যবসায়ীর গুদাম থেকে ৩ হাজার ৩০০ লিটার খোলা সয়াবিন তেল উদ্ধার করেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। পরে অশোক সরকার ও স্বপন দত্তকে ৫০ হাজার করে এবং শহীদুল ইসলামকে ৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

ইউএনও উজ্জ্বল হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, শহীদুল ইসলামের গুদামে পাওয়া তেল আগামী দুই দিনের মধ্যে নায্য দামে বিক্রির জন্য নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তবে অশোক সরকার ও স্বপন দত্তের গুদাম থেকে জব্দ করা তেল বোতলের গায়ের মূল্য অনুযায়ী ওই বাজারেই তাৎক্ষণিকভাবে বিক্রি করে দেওয়া হয়েছে। এসব ব্যবসায়ী অধিক মুনাফার আশায় বোতলজাত সয়াবিন তেল মজুত করেছিলেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন