বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

অপরদিকে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ৬০০ পরিবারের বাড়িঘর বিনষ্ট হওয়ার তথ্য জানানো হয়েছে। এর মধ্যে ১০০ পরিবারের বাড়িঘর সম্পূর্ণ এবং ৫০০ পরিবারের বাড়িঘর আংশিক বিনষ্ট হয়েছে। এখনো তাদের সরকারিভাবে আর্থিক সহায়তা দেওয়া হয়নি।

১৯ অক্টোবর রাতে উজান থেকে পাহাড়ি ঢল হঠাৎ নেমে আসায় তিস্তা নদীতীরবর্তী জেলা ও উপজেলায় বন্যা দেখা দেয়। রংপুরের পাশাপাশি লালমনিরহাটের পাটগ্রাম উপজেলার দহগ্রাম ইউনিয়নের দুই–তৃতীয়াংশ এলাকা পানিতে তলিয়ে যায়। এতে সেতু ও সড়ক ভেঙে এবং ফসল বিনষ্ট হয়ে ১৭ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

উপজেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, কৃষি বিভাগ, স্থানীয় প্রকৌশল অধিদপ্তর, বিদ্যুৎ বিভাগ, প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয় ক্ষয়ক্ষতি নিরূপণ করেছে। প্রায় ১৭ কোটি টাকার সরকারি-বেসরকারি অবকাঠামোর ক্ষতি হয়েছে।

বন্যায় দহগ্রাম ইউনিয়নের ৬টি ওয়ার্ডের ২০টি গ্রামে বন্যা প্রবল রূপ ধারণ করে। এ সময় ১ হাজার ৫০০ একর আমন ধান ও অন্যান্য ফসলের খেত তলিয়ে যায়। বন্যার পানির চাপে দুটি সেতু ভেঙে গেছে এবং কয়েক শ বসতবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

পাটগ্রাম উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আবদুল গাফফার জানান, ৪৬৫ হেক্টর জমির আমন ধানের খেত বন্যার পানির সঙ্গে আসা বালুতে নষ্ট হয়েছে। এতে ক্ষতির পরিমাণ প্রায় ৫ কোটি ১০ লাখ টাকা। উপজেলা প্রকৌশলী মাহাবুব উল আলম জানান, সেতু ও সড়ক মিলিয়ে প্রায় ১০ কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে। এ ছাড়া বিদ্যুৎ ও মৎস্য খাতে দেড় কোটি টাকার বেশি ক্ষতি হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন