বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আদালতের বেঞ্চ সহকারী ওমর ফুয়াদ প্রথম আলোকে বলেন, আদালত আসামি জাকিরকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড, ২০ হাজার টাকা জরিমানা অনাদায়ে আরও এক বছরের বিনা শ্রম কারাদণ্ড দেন। অভিযোগ প্রমাণিত না হওয়ায় এই মামলার বাকি সাত আসামিকে বেকসুর খালাস দেওয়া হয়। রায় ঘোষণার সময় বিচারক পুলিশি তদন্তে অসন্তোষ প্রকাশ করে ত্রুটিগুলো নগর পুলিশ কমিশনারের কাছে পাঠানোর আদেশ দেন।

আদালত সূত্র জানায়, সহকারী উপ–পুলিশ পরিদর্শক (এএসআই) মো. ইদ্রিস মিয়া নোয়াখালী জেলা পুলিশে কর্মরত ছিলেন। ছুটিতে তিনি চট্টগ্রামে আসেন।

সিএনজিচালিত অটোরিকশায় করে গন্তব্যে যাওয়ার পথে ২০০৬ সালের ২৭ ডিসেম্বর ইদ্রিস মিয়া ছিনতাইকারীদের হাতে খুন হন। পরের দিন চান্দগাঁও বিসিক শিল্প এলাকা থেকে তাঁর লাশ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় চান্দগাঁও থানার এসআই কে এম পেয়ার আহমেদ বাদী হয়ে মামলা করেন। এতে বলা হয়, ছিনতাইকারীরা চোখে মলম লাগিয়ে ছুরিকাঘাতে তাঁকে খুন করে লাশ ফেলে চলে যায়। তদন্ত শেষে পুলিশ ছিনতাইকারী দলের আটজনকে আসামি করে অভিযোগপত্র দেয়। ২১ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য শেষে পুলিশ আজ রায় দেন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন