মোস্তফা বলেন, তাঁর স্ত্রীর হরমোনজনিত ও গাইনি সমস্যা থাকায় পাঁচ বছর পর্যন্ত সন্তান হয়নি। পরে চিকিৎসকের পরামর্শে পাঁচ বছর পর একটি পুত্রসন্তান জন্মগ্রহণ করে। পরে চার বছর পর চিকিৎসকের পরামর্শে রুজিনা আবার অন্তঃসত্ত্বা হলে আলট্রাসনোগ্রাম করে জানা যায় গর্ভে তিনটি সন্তান রয়েছে।

পেটে তিন সন্তানের তথ্যে রুজিনা ভীত হয়ে পড়েছিলেন বলে জানান মোস্তফা। তিনি বলেন, পরে নিয়মিত কয়েকবার চেকআপ করে দুটি ছেলে সন্তানের তথ্য জানা যায়। অপর একটি সন্তানের কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। কিন্তু বুধবার দুপুরে অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে একসঙ্গে তিন পুত্রসন্তানের জন্ম হয়। শিশুদের এনআইসিইউতে রাখা হয়েছে। তবে তিন সন্তান ও মা ভালো আছেন।

গোলাম মোস্তফা আনসার বাহিনীর হিসাবরক্ষক এবং রুজিনা খাতুন আনসার ও ভিডিপি সদস্য হওয়ায় তাঁদের খোঁজখবর নিতে আনসার ও ভিডিপি রংপুর রেঞ্জের পরিচালক আবদুস সামাদ হাসপাতালে গিয়ে মা ও শিশুদের সার্বিক বিষয়ে চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলেছেন।

চিকিৎসক সোনালী রানী মুস্তফীর বলেন, সিজারে একসঙ্গে তিন সন্তানের জন্ম দেন রুজিনা। বর্তমানে মা ও তিন সন্তান সুস্থ আছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন