default-image

আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে ধরা পড়া এড়াতে ইয়াবার প্যাকেট গিলে খেয়েছিলেন। অন্যদিকে, র‍্যাবের কাছে গোপন তথ্য ছিল, ইয়াবা নিয়ে কক্সবাজার থেকে মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া যাচ্ছেন এক তরুণ। সাটুরিয়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় তাঁকে তল্লাশিও করা হয়। তবে ইয়াবা না মেলায় হাসপাতালে নিয়ে এক্স-রে করানো হয়। এরপর পেটে মেলে বেলুনে মোড়ানো ইয়াবার প্যাকেট।

আজ মঙ্গলবার সকালে সাটুরিয়া বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে ওই তরুণসহ দুজনকে আটক করে র‍্যাব-৪–এর একটি দল। আটক হওয়া দুই তরুণ হলেন মানিকগঞ্জের দৌলতপুর উপজেলার ধামশ্বর ইউনিয়নের নাটুয়াবাড়ি গ্রামের আবির হোসেন (২৩) ও আরিফ হোসেন (৩০)। ইয়াবার প্যাকেট ছিল আবিরের পেটে। ইয়াবা কেনার জন্য টাকা দিয়েছিলেন আরিফ।

র‍্যাব-৪ সূত্রে জানা যায়, গতকাল সোমবার দুপুরে কক্সবাজারের টেকনাফ থেকে আবির ইয়াবার চালান সংগ্রহ করেন। এসব ইয়াবা গিলে খেয়ে মানিকগঞ্জের সাটুরিয়ার উদ্দেশে আসা একটি বাসে ওঠেন। আজ সকাল ১০টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে সাটুরিয়া বাসস্ট্যান্ড এলাকা থেকে আবির ও আরিফকে আটক করা করে র‍্যাব-৪–এর মানিকগঞ্জ কার্যালয়ের সদস্যরা। আরিফ সাটুরিয়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় আগে থেকে অবস্থান করছিলেন।

বিজ্ঞাপন

র‍্যাবের হাতে আটক থাকা অবস্থায় আবির হোসেন বলেন, টেকনাফ থেকে ১ হাজার ৪৫০টি ইয়াবা কেনেন। এরপর পলিথিনের ছোট মোড়কে থাকা এসব ইয়াবা বেলুনে ভরে তা পানি দিয়ে গিলে খান। এসব ইয়াবা পাঁচ হাজার টাকায় ব্যবসায়ী আরিফের কাছে পৌঁছে দেওয়ার কথা ছিল তাঁর। ১৭ থেকে ১৮ দিন আগেও একইভাবে পেটে করে ১ হাজার ৮০০টি ইয়াবা সাটুরিয়ায় নিয়ে আসেন। পরে মানিকগঞ্জের এক ব্যবসায়ীর কাছে তা পৌঁছে দেন।

বেলা দুইটার দিকে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত আবিরের পেট থেকে ৭০টি ইয়াবা বের করা হয় বলে জানান র‍্যাব-৪–এর মানিকগঞ্জ কার্যালয়ের কোম্পানি কমান্ডার (এএসপি) উনু মং। তিনি বলেন, এক্স-রে পরীক্ষায় ওই যুবকের পেটে ইয়াবা থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যায়। জেলা সদর হাসপাতালে পেট থেকে এসব ইয়াবা বের করার প্রক্রিয়া চলছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন