বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ন্যাশনাল চিলড্রেনস টাস্ক ফোর্স (এনসিটিএফ) বগুড়ার আয়োজনে ব্যতিক্রমী এই উদ্যোগে দুপুরে বগুড়া জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে আফিয়া ইবনাত প্রতীকী দায়িত্ব পালন করে। আফিয়া এনসিটিএফ বগুড়া জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক এবং বগুড়ার সরকারি মুজিবুর রহমান মহিলা কলেজের একাদশ শ্রেণির ছাত্রী।

ইয়েস-বাংলাদেশ, প্ল্যান ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ, অপরাজেয় বাংলাদেশ, ইয়ুথ ফর চেঞ্জ ও জেলা প্রশাসনের সহযোগিতায় এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
‘গার্লস টেকওভার’ ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে মেয়েদের সমাজের উচ্চ পর্যায়ের বিভিন্ন পদে প্রতীকী দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে তাদের অবস্থান, নেতৃত্ব, সিদ্ধান্ত ও সাফল্য তুলে ধরার আবহ সৃষ্টি করা হচ্ছে।

আফিয়া ইবনাতের জেলা প্রশাসকের দায়িত্ব পালনের সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা, বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেকট্রনিক মিডিয়ার সাংবাদিক, সুশীল সমাজের নেতা, শিক্ষক, অভিভাবক ও জেলা শিশু টাস্কফোর্সের সদস্যরা।

প্রতীকী জেলা প্রশাসকের দায়িত্ব গ্রহণের পর আফিয়া ইবনাত বগুড়া জেলায় বাল্যবিবাহ বন্ধসহ শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে কার্যকর ব্যবস্থা গ্রহণের সুপারিশমালা তুলে ধরে। পরে এসব সুপারিশ বাস্তবায়নের আশ্বাস দেন জেলা প্রশাসক জিয়াউল হক।
জেলা প্রশাসকের প্রতীকী দায়িত্ব গ্রহণের পর আফিয়া ইবনাতের কাছে জিয়াউল হক জানতে চান, বগুড়ায় কী পরিবর্তন দরকার? ইবনাত জানায়, বাল্যবিবাহ ও শিশুর প্রতি সহিংসতা বন্ধ করে বগুড়াকে শিশুবান্ধব জেলা হিসেবে গড়ে তুলতে হবে।

পরে আফিয়া বলে, প্রতীকী এই দায়িত্ব পালন তার কাছে স্বপ্নের মতো মনে হয়েছে।
জিয়াউল হক বলেন, প্রতীকী দায়িত্ব পালনের এই উদ্যোগ শিশু-কিশোরদের মধ্যে নেতৃত্ব দেওয়ার আত্মবিশ্বাস ও সাহস বৃদ্ধিতে সহায়তা করবে।

‘গার্লস টেকওভার’ অনুষ্ঠানের মাধ্যমে একজন কিশোরী, মেয়েশিশু অথবা যুব নারীকে নেতৃত্ব প্রদানকারী ভূমিকা পালন করতে সহায়তা করা হয়; যাতে তার আত্মবিশ্বাস বাড়ে। নিজের স্বপ্ন পূরণে সে অঙ্গীকারবদ্ধ হয়। মেয়েশিশুরা সমান সুযোগ ও সমান অধিকার পেলে বদলে দিতে পারে তাদের জীবন, তাদের আশপাশের সমাজ ও সমাজের মানুষকে—এমন বিশ্বাস থেকেই গার্লস টেকওভার কর্মসূচি চালু করা হয়।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন