বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ঢাকা-চট্টগ্রাম পুরাতন মহাসড়কের কুমিল্লা নগরের নূরপুর এলাকা পেরিয়ে তেলিকোনা সাহাপাড়া এলাকা। মূল সড়ক দিয়ে গলিতে প্রবেশের পর সরু পথের শেষ প্রান্তে হরিপদ সাহার টিনের ঘর। দুই কক্ষের ঘরের একটিতে শুয়ে আছেন রেণু। কোনো কথা বলছেন না তিনি। তাঁর পাশে বসা মেয়ে ভুলু রানী সাহা।

ভুলু বলেন, তাঁর মা এখনো জানেন না হরিপদ নেই। উচ্চ স্বরে একবার রেণু বালার কাছে হরিপদের কথা জানতে চাইলে তিনি বলেন, হরিপদ বাজারে গেছেন। আসবেন।

রেণু বালার ছয় মেয়ে ও এক ছেলের মধ্যে হরিপদ সবার ছোট। প্রায় ২০ বছর আগে হরিপদের বাবা মারা গেছেন। ছয় বোনের বিয়ে হয়ে গেছে। এর মধ্যে তিন বছর আগে এক বোন মঞ্জু রানী সাহা মারা গেছেন। চলতি বছর হরিপদের স্ত্রী রিংকু রানী সাহাও মারা যান। জীবিত পাঁচ বোন সবাই স্বামীর বাড়িতে থাকেন।

ভুলু রানী বলেন, ‘মাকে নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি। কে তাঁকে দেখবেন? আমরা বোনেরা স্বামীর বাড়িতে থাকেন। হরিপদের কোনো সন্তানও নেই। আমাদের আর্থিক অবস্থাও ভালো নয়। কাউন্সিলর সোহেল আমার ভাইকে খুব মায়া করতেন। তিনি টাকা দিতেন। ওই টাকায় আমার মা ও ভাই চলতেন। এখন মায়ের কী হবে? এ ব্যাপারে সরকারের কাছে সহায়তা চাই। আমার ভাই ও সোহেল ভাইকে যারা হত্যা করেছে, তাদের বিচার চাই।’

এ বিষয়ে জানতে চাইলে কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরফানুল হক রিফাত বলেন, দল সব সময়ই হরিপদের পরিবারের পাশে থাকবে।

গত সোমবার বিকেল সাড়ে চারটায় নগরের পাথুরিয়াপাড়ায় নিজের রড-সিমেন্টের দোকান থ্রি স্টার এন্টারপ্রাইজে কাউন্সিলর মো. সোহেল ও তাঁর সহযোগী হরিপদ সাহাকে গুলি করে হত্যা করে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় আরও চারজন গুলিবিদ্ধ হন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন