বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সভায় নীলফামারী জেলা বাস-মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক মো. আলতাফ হোসেন ও নীলফামারী জেলা মাইক্রোবাস, জিপ, কার, পিকআপ মালিক সমিতির সড়কবিষয়ক সম্পাদক কাইয়ুম খান প্রমুখ বক্তব্য দেন।

সভায় নীলফামারী জেলা বাস–মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মোফাজ্জল হোসেন, সড়ক সম্পাদক শফিকুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক আবদুল জলিল, কোষাধ্যক্ষ মনছুর আলী, ক্রীড়া সম্পাদক স্বপন মিয়া, সমাজকল্যাণ সম্পাদক লেবু মিয়া, কার্যকরী সদস্য রবিউল ইসলাম, মাইক্রোবাস, জিপ, কার, পিকআপ উপকমিটির সম্পাদক মানিক মিয়া উপস্থিত ছিলেন।

সভায় পরিবহন নেতারা বলেন, বর্তমানে সৈয়দপুর বিমানবন্দরকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে উন্নীত করার কাজ চলছে। সৈয়দপুর বিমানবন্দরে প্রতিদিন ঢাকা-সৈয়দপুর-ঢাকা রুটে সরকারি–বেসরকারি বিমান সংস্থার ১৪টি বিমান ওঠা–নামা করছে। ৩০ সেপ্টেম্বর থেকে ঢাকা-চট্টগ্রাম রুটেও বেসরকারি বিমান সংস্থা ইউএস–বাংলা এয়ারলাইনসের ফ্লাইট পরিচালনা শুরু হচ্ছে। এ অবস্থায় সৈয়দপুর বিমানবন্দর থেকে যাত্রীদের বিভিন্ন গন্তব্যে পরিবহনে স্থানীয় মাইক্রোবাস, জিপ ও কার মালিক এবং শ্রমিকেরা অগ্রাধিকার পাবেন—এটি স্বাভাবিক। এ ছাড়া ২০১৮ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি নীলফামারীর সৈয়দপুর বিমানবন্দরের যাত্রী পরিবহন নিয়ে বেসরকারি বিমান সংস্থার প্রতিনিধি, সৈয়দপুর বিমানবন্দর ব্যবস্থাপক এবং নীলফামারী জেলা পরিবহন মালিক ও শ্রমিকনেতাদের মধ্যে এক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

বক্তারা বলেন, সৈয়দপুর বিমানবন্দরের তৎকালীন ব্যবস্থাপক মো. শাহীন হোসেনের সভাপতিত্বে তাঁরই অফিসকক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় নীলফামারী জেলা বাস-মিনিবাস শ্রমিক ইউনিয়নের তৎকালীন সভাপতি প্রয়াত আখতার হোসেন, নীলফামারী জেলা মাইক্রোবাস, কার ও পিকআপ মালিক ও শ্রমিক সংগঠনের নেতারা এবং বেসরকারি বিমান সংস্থার প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

বক্তারা জানান, ওই সভায় সৈয়দপুর বিমানবন্দরে দিনের প্রথম ভাগে অবতরণ করা বিমানগুলোর যাত্রীদের মধ্য থেকে নীলফামারী জেলা মাইক্রোবাস, জিপ, কার ও পিকআপ মালিক সমিতির অন্তর্ভুক্ত একটি মাইক্রোবাসে ও একটি কারে প্রথম সিরিয়ালের যাত্রী পূর্ণ হওয়ার পর দ্বিতীয় সিরিয়ালে বেসরকারি এয়ারলাইনসের একটি করে গাড়ি নিজ নিজ বিমানের যাত্রী রংপুর, দিনাজপুর, ঠাকুরগাঁও ও পঞ্চগড় নিয়ে যেতে পারবে বলে সিদ্ধান্ত হয়। আর বাকি যাত্রীদের স্থানীয় মাইক্রোবাস, জিপ ও কার মালিক সমিতির গাড়িগুলো পরিবহন করবে।

এ ছাড়া সে সময় সৈয়দপুর বিমানবন্দর থেকে বিমানযাত্রীদের পরিবহনের ক্ষেত্রে আরও বেশ কয়েকটি সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছিল। ওই সব সিদ্ধান্ত লিখিত আকারে গ্রহণ করা হয়, যাতে সৈয়দপুর বিমানবন্দরের তৎকালীন ব্যবস্থাপক শাহীন আহমেদ স্বাক্ষর করেছিলেন। কিন্তু বর্তমানে বেসরকারি বিমান সংস্থাগুলো ওই লিখিত সিদ্ধান্ত না মেনে তাদের নিজস্ব গাড়িতে বিমানযাত্রী পরিবহনের পাঁয়তারা করছে। এতে পরিবহনমালিক ও শ্রমিকনেতারা ক্ষোভ ও নিন্দা প্রকাশ করেন। সেই সঙ্গে পরিবহন নেতারা বিগত সময়ে সিভিল এভিয়েশন তথা বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষের সঙ্গে পরিবহনমালিক ও শ্রমিকদের মধ্যে অনুষ্ঠিত সভার সিদ্ধান্তগুলো মেনে চলার দাবি জানান। অন্যথায় ভবিষ্যতে সংগঠনের পক্ষ থেকে কঠোর আন্দোলন কর্মসূচি দেওয়ার হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন তাঁরা।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন