বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্থানীয় লোকজন জানান, সকালে সাতঘরিয়াপাড়াসংলগ্ন ক্লিব্বা পাহাড়ের খাদের একটি পাহাড়ি ঝিরিতে বাচ্চা হাতিটিকে পড়ে থাকতে দেখেন স্থানীয় কয়েকজন কাঠুরিয়া। এরপর হাতির মৃত্যুর খবর বন বিভাগের কর্মীদের জানানো হয়। বেলা ১১টায় স্থানীয় ফুলছড়ি রেঞ্জের রাজঘাট বন বিট কর্মকর্তা মো. আলাউদ্দিনের নেতৃত্বে বন বিভাগের একটি দল ঘটনাস্থলে পৌঁছে মৃত বাচ্চা হাতিটিকে দেখতে পায়।

রাজঘাট বিট কর্মকর্তা মো. আলাউদ্দিন বলেন, মৃত হাতিটি পুরুষ জাতের। এটির দৈর্ঘ্য ৭ ফুট, প্রস্থ ৫ ফুট ও শুঁড় আড়াই ফুট। বয়স তিন থেকে চার বছর হতে পারে।

সহকারী বন সংরক্ষক (এসিএফ) প্রান্তোষ চন্দ্র রায় ও ফুলছড়ির বন রেঞ্জ কর্মকর্তা ফারুক আহমদ বলেন, পাহাড়ের ঢাল বেয়ে নিচে নামার সময় পা পিছলে পড়ে হাতিটির মৃত্যু হয় বলে ধারণা করা হচ্ছে। হাতির শরীরে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে।

বন বিভাগের কর্মীরা বলেন, গত এক বছরে বনাঞ্চলে তিনটি বন্য হাতির মৃত্যু হয়েছে। স্থানীয় লোকজন খেতের ফসল রক্ষার জন্য গুলি করে কিংবা বৈদ্যুতিক তারে ফাঁদ বসিয়ে হাতি হত্যা করছে। হাতি ও মানুষের দ্বন্দ্ব নিরসনে বন বিভাগের পক্ষ থেকে সম্প্রতি রামু, ঈদগাঁও, চকরিয়া উপজেলায় একাধিকবার হাতির সুরক্ষায় সচেতনতামূলক সভা ও সমাবেশ হয়েছে।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন