default-image

২৬ লাখ মানুষের জেলা কক্সবাজারে প্রথম টিকা কে নিচ্ছেন—এ নিয়ে কয়েক দিন ধরেই আলোচনা চলছিল। গতকাল শনিবার ঠিক করা হয়, প্রথম করোনার টিকা নেবেন সিভিল সার্জন মাহবুবুর রহমান। এরপর নেবেন কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অনুপম বড়ুয়া। কারণ হিসেবে বলা হয়েছিল, করোনা নিয়ে মানুষের মন থেকে ভয় ও সন্দেহ দূর করা।

তবে আজ রোববার বেলা ১১টার উদ্বোধনী সভায় টিকা গ্রহণকারীর নামটা পাল্টে গেল। পুরুষদের মধ্যে জেলায় প্রথম টিকা নিয়েছেন কক্সবাজার-৩ আসনের সাবেক সাংসদ ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান খান বাহাদুর মোস্তাক আহমদ চৌধুরী। নারীদের মধ্যে প্রথম নেন তাঁর স্ত্রী ও কক্সবাজারের সংরক্ষিত আসনের সাংসদ কানিজ ফাতেমা মোস্তাক।

এই দম্পতির টিকা নেওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ে সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যম ফেসবুকে। এরপর থেকে তাঁদের নিয়ে শুরু হয় আলোচনা। এর আগে দুপুর ১২টায় কক্সবাজার সদর হাসপাতালে টিকা গ্রহণের উদ্বোধনী সভার আয়োজন করা হয়।

সভায় মোস্তাক আহমদ চৌধুরী প্রস্তাব করেন, তিনি বঙ্গবন্ধুর সঙ্গে রাজনীতি করেছেন। একাধিকবার সাংসদও ছিলাম। এখন বয়স ৭৬। সভায় উপস্থিত থাকা ব্যক্তিদের মধ্যেও জ্যেষ্ঠ। তাই জেলায় প্রথম টিকাটি তিনিই নিতে চান। এরপর জেলা প্রশাসক মামুনুর রশীদ প্রথম হিসেবে টিকা নেওয়ার প্রস্তাব দিয়ে বলেন, জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা হিসেবে প্রথমে টিকা নিয়ে তিনি সাধারণ মানুষকে উৎসাহিত করতে চান।

বিজ্ঞাপন

উদ্বোধনী সভা শেষে অতিথিরা যান হাসপাতালের তৃতীয় তলায় স্থাপন করা টিকাদানের বুথে। সেখানে তিনটি বুথের মধ্যে একটি নারীদের জন্য সংরক্ষিত। শেষ পর্যন্ত প্রথম ব্যক্তি হিসেবে টিকা নেন মোস্তাক আহমদ চৌধুরী। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, জেলার ২৬ লাখ মানুষের মধ্যে প্রথমে টিকা নিতে পেরে তাঁর গর্ব বোধ হচ্ছে। তিনি চান দেশের সব মানুষ টিকা নিক।

একই সময় নারীদের সংরক্ষিত বুথে টিকা নেন মোস্তাক আহমদ চৌধুরীর স্ত্রী কানিজ ফাতেমা মোস্তাক। তিনি বলেন, টিকা নেওয়ার সময় কোনো যন্ত্রণা নেই। ভয়, সন্দেহ দূর করে সবাই টিকা নিলে দেশ দ্রুত করোনামুক্ত হবে।

default-image

পুরুষদের বুথে দ্বিতীয় টিকা নেন জেলা প্রশাসক মামুনুর রশীদ। টিকা নেওয়ার সময় তাঁকেও উৎফুল্ল দেখা যায়। প্রতিক্রিয়া জানিয়ে তিনি বলেন, উৎসবমুখর পরিবেশে করোনা টিকা প্রয়োগ কর্মসূচি সফল হোক—এটাই তাঁর প্রত্যাশা।

কক্সবাজার জেলা সিভিল সার্জন মাহবুবুর রহমান বলেন, উদ্বোধনী দিন শুধু কক্সবাজার সদর হাসপাতালের তিনটি বুথে করোনা টিকা দেওয়া হচ্ছে। আগামীকাল সোমবার থেকে জেলার আটটি উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের একাধিক বুথে নিবন্ধিত ব্যক্তিদের টিকা দেওয়া হবে।

জেলায় করোনা টিকা পাওয়া গেছে ৮৪ হাজার। টিকার জন্য এ পর্যন্ত তালিকা পাওয়া গেছে ৪৫ হাজার জনের। এর মধ্যে অনলাইনে নিবন্ধন করেন ৬ হাজার ৬৩৪ জন।

জেলা থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন